default-image

ইউরোপীয় দেশ চেক প্রজাতন্ত্রের ২০ কূটনীতিককে বহিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছে রাশিয়া। আজ সোমবার বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সদস্য চেক প্রজাতন্ত্রের বিরুদ্ধে পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে রাশিয়া এ পদক্ষেপ নিল। গত শনিবার রাশিয়ার ১৮ কূটনীতিককে বহিষ্কার করে চেক প্রজাতন্ত্র। তার জবাবে চেক প্রজাতন্ত্রের ২০ কূটনীতিককে বহিষ্কার করল রাশিয়া।

২০১৪ সালে চেক প্রজাতন্ত্রের গোলাবারুদের একটি ডিপোতে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। ওই বিস্ফোরণের ঘটনায় সংশ্লিষ্টতার সন্দেহে রাশিয়ার কূটনীতিকদের বহিষ্কার করে চেক প্রজাতন্ত্র। দেশটির কর্মকর্তাদের ভাষ্য, রাশিয়ার যে ১৮ কূটনীতিককে বহিষ্কার করা হয়েছে, তাঁরা দেশটির গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। চেক প্রজাতন্ত্রের এ পদক্ষেপে সমর্থন দিয়ে পাশে থাকার কথা জানিয়েছে রাজধানী প্রাগের মার্কিন দূতাবাস।

বিজ্ঞাপন

এদিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা আজ সোমবার এক বৈঠকে বসছেন। তাঁদের বৈঠকে রাশিয়ার বিরুদ্ধে চেক প্রজাতন্ত্রের তোলা অভিযোগের বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হবে বলে জানা গেছে।

রাশিয়ার বহিষ্কৃত ১৮ কূটনীতিককে চেক প্রজাতন্ত্র ত্যাগ করার জন্য ৭২ ঘণ্টা সময় দিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। অন্যদিকে চেক প্রজাতন্ত্রের বহিষ্কৃত ২০ কূটনীতিককে রাশিয়া ত্যাগ করার জন্য এক দিন সময় দিয়েছে মস্কো।

চেক প্রজাতন্ত্রের সিদ্ধান্তকে ‘নজিরবিহীন’ ও ‘বৈরী আচরণ’ বলে অভিহিত করেছে রাশিয়া। রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রকে খুশি করতে চেক প্রজাতন্ত্র রুশ কূটনীতিকদের বহিষ্কার করেছে।

২০১৪ সালে চেক প্রজাতন্ত্রের গোলাবারুদের ডিপোতে বিস্ফোরণের ঘটনাটিকে দুর্ঘটনা হিসেবে মনে করা হচ্ছিল। কিন্তু পরে দেশটির গোয়েন্দারা এ বিস্ফোরণের জন্য রাশিয়ার দিকে আঙুল তোলেন। সম্প্রতি দেশটির প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রে বাবিস এক টেলিভিশন বার্তায় ভেরবেটিস অঞ্চলের ডিপোতে মজুত থাকা গোলাবারুদের বিস্ফোরণে রাশিয়ার জড়িত থাকার ইঙ্গিত দেন।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন