ইউক্রেনের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের এনারহোদার শহরে জাপোরিঝঝিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রটি অবস্থিত। এটি ইউরোপের সবচেয়ে বড় পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে। ইউক্রেনের এক-চতুর্থাংশ বিদ্যুৎ এ কেন্দ্র থেকে সরবরাহ করা হয়ে থাকে।

জাপোরিঝঝিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে হামলার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ সৃষ্টি হয়। তবে কেন্দ্রটির বিকিরণের মাত্রা এখনো স্বাভাবিক রয়েছে।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছেন, রাশিয়া ইচ্ছাকৃতভাবে জাপোরিঝঝিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে হামলা চালিয়েছে। তিনি রাশিয়ার বিরুদ্ধে পরমাণু সন্ত্রাস চালানোর অভিযোগ তুলেছেন। একই সঙ্গে বলেছেন, রাশিয়া ১৯৮৬ সালের চেরনোবিল বিপর্যয়ের পুনরাবৃত্তি চায়।

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রটিতে হামলার নিন্দা জানিয়েছেন বিশ্বনেতারা। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বেপরোয়া পদক্ষেপ পুরো ইউরোপের নিরাপত্তাকে সরাসরি হুমকির মুখে ফেলতে পারে।

জাপোরিঝঝিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে হামলার জেরে যুক্তরাষ্ট্র তার ‘নিউক্লিয়ার ইনসিডেন্ট রেসপনস টিম’ সক্রিয় করে। আল-জাজিরা টেলিভিশনের অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়, পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রটির সবশেষ পরিস্থিতি জানতে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কির সঙ্গে কথা বলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। হোয়াইট হাউস থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

হোয়াইট হাউসের বিবৃতিতে বলা হয়, জাপোরিঝঝিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র এলাকায় সামরিক কর্মকাণ্ড বন্ধ করার জন্য রাশিয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বাইডেন ও জেলেনস্কি। এলাকাটিতে ফায়ার সার্ভিস ও জরুরি সেবাকর্মীদের কাজ করার সুযোগ করে দিতেও আহ্বান জানানো হয়েছে।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন