default-image

জার্মানিতে করোনাভাইরাসের কারণে দেওয়া বিধিনিষেধ আরও চার-পাঁচ মাস স্থায়ী হতে পারে। স্থানীয় সময় রোববার জার্মান অর্থমন্ত্রী পিটার আল্টমায়ার এ কথা বলেন। তিনি জানিয়েছেন, দুই সপ্তাহ আগে জার্মানির কিছু এলাকায় চালু করা লকডাউন শিগগিরই তুলে নেওয়ার সম্ভাবনা খুব কম।

বার্তা সংস্থা এএফপি বলছে, করোনা বিধিনিষেধের অগ্রগতি মূল্যায়নে স্থানীয় সময় আগামীকাল সোমবার জার্মান সরকারের পক্ষ থেকে বৈঠকে বসার কথা রয়েছে। বৈঠকের এক দিন আগে একটি জার্মান সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া বক্তব্যে আল্টমায়ার বলেন, সংক্রমণের সংখ্যা এখনো অনেক বেশি। ১৫ দিন আগের চেয়ে এখনকার সংক্রমণের সংখ্যা বেশি বলে তিনি জানান।

এই মাসের শুরুতে জার্মানিতে আংশিক লকডাউন জারি করা হয়। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও দোকানপাট খোলা রাখলেও লকডাউনে বার, রেস্তোরাঁ, ব্যায়ামাগার ও অন্য বিনোদনমূলক প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হয়। গত শুক্রবারও দেশটিতে রেকর্ড ২ হাজার ৩০০ জনেরও বেশি রোগী শনাক্ত হয়।

বিজ্ঞাপন

আল্টমায়ার বলেন, ‘অন্তত আগামী চার-পাঁচ মাস আমাদের যথেষ্ট সাবধানতা ও বিধিনিষেধের মধ্যে জীবনযাপন করতে হবে। অনেকেই বিধিনিষেধ শিথিলের প্রত্যাশা করছেন। হয়তো ভাবছেন, রেস্তোরাঁ ও সিনেমা হলগুলো পুনরায় চালু হবে। কিন্তু সংক্রমণের উচ্চ হারের দিকে তাকালে আমাদের এখনো কিছু কৌশল অবলম্বনের সুযোগ রয়েছে।’

জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল ও জার্মানির ১৬টি অঙ্গরাজ্যের প্রধানেরা এই মাসের শেষ পর্যন্ত বিধিনিষেধ জারি রাখার বিষয়ে একমত হয়েছেন। কিন্তু লকডাউনের সময়সীমা আরও বাড়বে কি না, এ বিষয়ে আগামীকাল সোমবার তাঁরা আবারও বৈঠকে বসবেন। দেশটিতে তিন লাখের বেশি স্কুল শিক্ষার্থী কোয়ারেন্টিনে আছে। বিদ্যালয় বন্ধে মানুষের দাবি দিন দিন বাড়ছে। সাধারণ মানুষ চাচ্ছে, বিদ্যালয়গুলো তাদের শিক্ষা কার্যক্রম যেন অনলাইনে চালায়।

এদিকে বিধিনিষেধের বিরুদ্ধে গত শনিবার জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্টসহ বিভিন্ন শহরে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন অনেকে। একপর্যায়ে বিক্ষোভকারীদের ওপর জলকামান ব্যবহার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

এএফপির খবরে বলা হয়, জার্মানির রবার্ট কখ ইনস্টিটিউট ডিজিজ কন্ট্রোল সেন্টারের তথ্যমতে, জার্মানিতে ৭ লাখ ৯০ হাজার ৫০৩ জন করোনা রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। দেশটিতে করোনায় ১২ হাজার ৪৮৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। দেশটিতে কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত হয়ে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) থাকা রোগীর সংখ্যা বেড়ে ৩ হাজার ৩০০–এ দাঁড়িয়েছে।

এদিকে জার্মানির প্রতিবেশী দেশ অস্ট্রিয়াতেও সপ্তাহ দুয়েক আগে আংশিক লকডাউনের ঘোষণা দেওয়া হয়। দেশটিতে আগামী মঙ্গলবার থেকে স্কুল ও অপ্রয়োজনীয় দোকানপাট বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0