default-image

করোনাভাইরাসের প্রথম প্রজন্মের টিকা সঠিকভাবে কার্যকর নাও হতে পারে। সবার জন্য এই টিকা কাজ নাও করতে পারে। যুক্তরাজ্যের ভ্যাকসিন টাস্কফোর্সের সভাপতি কেট বিংহাম স্থানীয় সময় গতকাল মঙ্গলবার এ কথা জানান।

দ্য ল্যানসেট মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত এক নিবন্ধে বিংহাম বলেন, ‘জানি না, আদৌ আমরা কোনো টিকা পাব কি না। খুব বেশি আত্মতুষ্টি ও অতিরিক্ত আশাবাদী হওয়ার ব্যাপারে আমাদের সতর্ক থাকা দরকার।’ তিনি আরও বলেন, ‘প্রথম প্রজন্মের টিকা সংক্রমণ প্রতিরোধ নাও করতে পারে। তবে উপসর্গ কমাতে পারে। আবার সবার জন্য দীর্ঘ মেয়াদে টিকা কার্যকর নাও হতে পারে। এসব বিষয়ের জন্য আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে।’

বিজ্ঞাপন

বিংহাম ওই লেখায় জানান, ভ্যাকসিন টাস্কফোর্স মনে করে, বেশির ভাগ, এমনকি প্রায় সব টিকাই ব্যর্থ হতে পারে। টিকাগুলোর মূল ফোকাস ছিল প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো; বিশেষ করে ৬৫ বছরের বেশি বয়সীদের।

বিংহাম বলেন, টিকার বৈশ্বিক উৎপাদন ক্ষমতা অপর্যাপ্ত। কয়েক কোটি ডোজ টিকা প্রয়োজন। কিন্তু সে তুলনায় যুক্তরাজ্যের উৎপাদন ক্ষমতা খুবই কম।

ইমপেরিয়াল কলেজ লন্ডনের বিজ্ঞানীদের গতকাল মঙ্গলবারের এক জরিপ বলছে, গরমের সময় ব্রিটিশ জনগোষ্ঠীর মধ্যে করোনাভাইরাসের অ্যান্টিবডি খুব দ্রুত কমে গিয়েছে। ওই জরিপ বলছে, করোনা সংক্রমণের পর সুরক্ষার বিষয়টি দীর্ঘমেয়াদি নাও হতে পারে।

দ্য টেলিগ্রাফের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ প্রথমটির চেয়ে বেশি মারাত্মক হবে—এমন ধারণা নিয়ে কাজ করছে ব্রিটিশ সরকার।

মন্তব্য পড়ুন 0