default-image

ন্যায্যতার ভিত্তিতে ধনী ও দরিদ্র দেশগুলোয় করোনাভাইরাসের টিকা সরবরাহ নিশ্চিত করতে গঠিত কোভ্যাক্স উদ্যোগ চালাতে আরও অর্থ প্রয়োজন। আগামী বছর পর্যন্ত এই টিকা কর্মসূচি চালাতে সাড়ে তিন থেকে সাড়ে চার হাজার মার্কিন ডলার প্রয়োজন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মহাপরিচালক তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুস এ তথ্য জানিয়েছেন। খবর বিবিসির।

কোভ্যাক্স (কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনস গ্লোবাল অ্যাকসেস ফ্যাসিলিটি) উদ্যোগের যৌথ নেতৃত্বে রয়েছে ডব্লিউএইচও, স্বল্পমূল্যে টিকা দেওয়ার বৈশ্বিক উদ্যোগ গ্যাভি, সংক্রামক রোগের টিকা তৈরির জন্য আন্তর্জাতিক সহযোগিতামূলক সংস্থা (সিইপিআই), জাতিসংঘের শিশু তহবিল ইউনিসেফসহ আরও বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান।

বিজ্ঞাপন

করোনাভাইরাসে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ কোটি ৪২ লাখের বেশি মানুষ। করোনার তথ্য সরবরাহকারী ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারসের তথ্য অনুসারে, এই মহামারিতে মারা গেছেন ৩২ লাখের বেশি মানুষ। সুস্থ হয়েছেন প্রায় ১৩ কোটি ১৬ লাখ। এই মহামারি ঠেকাতে কোভ্যাক্স কর্মসূচি দৃশ্যমান হয় গত ফেব্রুয়ারিতে। ওই মাসে ঘানায় প্রথম টিকা সরবরাহ করা হয়। এরপর থেকে বিভিন্ন দেশে টিকা সরবরাহ করছে তারা।

কোভ্যাক্সের পক্ষ থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ৪ কোটি ৯০ লাখ ডোজ টিকা বিভিন্ন দেশে সরবরাহ করা হয়েছে। তবে ধনী ও দরিদ্র দেশগুলোর মধ্যে টিকাপ্রাপ্তির যে বিশাল ব্যবধান, তা এখনো বিদ্যমান। এই মহামারি ঠেকাতে ধনী দেশগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছিলেন তেদরোস আধানোম গেব্রেয়াসুসসহ বিশেষজ্ঞরা। তবে ধনী দেশগুলো এগিয়ে না আসায় তাদের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ধনী দেশগুলো কোভ্যাক্স কর্মসূচিকে উপেক্ষা করছে। তারা দ্রুত সব টিকা নিয়ে নিচ্ছে। যে পরিমাণ টিকা দরকার, তার চেয়ে বেশি টিকার ক্রয়াদেশও দিচ্ছে তারা।

তেদরোস আধানোম বলেন, বিশ্বজুড়ে নিম্ন আয়ের দেশগুলোর নাগরিকদের মধ্যে মাত্র শূন্য দশমিক ৩ শতাংশকে টিকা দেওয়া হয়েছে গত এপ্রিলে। টিকার যে সংকট, তা কাটিয়ে উঠতে আগামী জুন নাগাদ দুই কোটি ডোজ টিকা দরকার কোভ্যাক্সের।

বিশ্বজুড়ে করোনা ঠেকাতে পাঁচটি টিকার অনুমোদন দিয়েছে ডব্লিউএইচও। তবে সব টিকা পাচ্ছে না কোভ্যাক্স। শুধু ফাইজার ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা সরবরাহ করছে কোভ্যাক্স। তবে মডার্না জানিয়েছে, কম দামে তারা কোভ্যাক্সকে ৫০ কোটি ডোজ টিকা দেবে। তবে এই টিকা এখনই পাওয়া যাবে না। টিকা মিলবে ২০২২ সাল নাগাদ। এ ছাড়া ধনী দেশগুলোর মধ্যে সর্বশেষ কোভ্যাক্সকে সহযোগিতা করতে এগিয়ে এসেছে সুইডেন। তারা ১০ লাখ ডোজ টিকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। অ্যাস্ট্রাজেনেকার এই টিকা সরবরাহ শুরু হচ্ছে চলতি মে থেকে।

বিজ্ঞাপন
ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন