বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জার্মানির মোট জনসংখ্যার ৬৮ শতাংশ করোনার টিকার পূর্ণাঙ্গ ডোজের আওতায় এসেছে। তবে এই হার পশ্চিম ইউরোপের অন্যান্য দেশের তুলনায় বেশ কম। এর মধ্যেই সংক্রমণের চতুর্থ ঢেউয়ের ঝুঁকি জার্মান সরকারকে চিন্তায় ফেলেছে। প্রতিদিনই দেশটিতে নতুন সংক্রমণের সংখ্যা বাড়ছে। ইতিমধ্যে দেশটির অনেক হাসপাতাল করোনা রোগীতে পূর্ণ হয়ে গেছে।

মহামারি শুরুর পর থেকে এখন জার্মানিতে সবচেয়ে বেশি করোনা রোগী শনাক্ত হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ৩০ হাজার ৬০০–এর বেশি। বর্তমানে এক দিনে বিশ্বে করোনা রোগী শনাক্তের এটাই সর্বোচ্চ সংখ্যা।

করোনার ডেলটা ধরন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার পরিপ্রেক্ষিতে টিকা না নেওয়া ব্যক্তিদের কিছু জায়গায় চলাফেরায় বিধিনিষেধ আরোপ করেছে জার্মানি। আসন্ন বড়দিনের আগে বেশকিছু বাজার বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সরকার। এর পরও সংক্রমণের চতুর্থ ঢেউয়ের ঝুঁকি এড়ানো যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে জার্মান স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সবার জন্য করোনার টিকা বাধ্যতামূলক করার পক্ষে আমি নই। তবে নৈতিক দায়িত্ববোধ থেকে সবার টিকা নেওয়া উচিত। কেননা, এর ফলে একদিকে যেমন নিজের সুরক্ষা নিশ্চিত করা যাবে, অন্যদিকে অন্য মানুষের সুরক্ষাও নিশ্চিত হবে।’

জনগণের প্রতি টিকা নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে ইয়েন্স স্পান আরও বলেন, ‘স্বাধীনতা মানে দায়িত্ববান হওয়া। করোনার টিকা নেওয়ার মাধ্যমে সমাজের প্রতি আপনার দায়িত্ব পালন করুন।’

এদিকে জার্মানির সংক্রামক রোগ গবেষণাকেন্দ্র রবার্ট কখ ইনস্টিটিউটের পরিচালক লোথার ভিলার বলেন, ‘জার্মানিতে যেভাবে করোনার বিস্তৃতি ঘটছে, তা বন্ধ করা না গেলে আমাদের জন্য অন্ধকারময় সময় অপেক্ষা করছে।’

লোথার ভিলার আরও বলেন, ‘সংকট মোকাবিলায় রাজনৈতিক নেতারা গুরুত্বসহকারে কোনো সিদ্ধান্ত নেননি। এ পরিস্থিতিতে বড়দিনে অন্ধকারাচ্ছন্ন সময় পার করতে হতে পারে।’

চতুর্থ ঢেউয়ের লাগাম টানতে দ্রুত টিকা দেওয়া, যেসব অঞ্চলে সংক্রমণ বেশি, সেখানে চলাফেরায় বিধিনিষেধ জারি করাসহ সবার জন্য করোনার টিকা বাধ্যতামূলক করতে রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের দাবি জানান ইয়েন্স স্পান।

জার্মানির স্বনামধন্য ভাইরোলজিস্ট ক্রিশ্চিয়ান ড্রস্টেন বর্তমান পরিস্থিতিতে সতর্কবার্তা দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘যদি এখনই কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া না হয়, তাহলে জার্মানিতে আরও বেশি সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়বে এবং আরও লক্ষাধিক মানুষের মৃত্যু ঘটতে পারে। এই বিশেষজ্ঞের মতে, বর্তমানে করোনা পরিস্থিতি গত বছরের চেয়েও খারাপ। কারণ, গত বছর এই সময় দেশটিতে কঠোর লকডাউন ছিল।

শুধু জার্মানি নয়, শীত মৌসুমের শুরুতেই পুরো ইউরোপে করোনা সংক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে। সংক্রমণ ঠেকাতে ইতিমধ্যে লকডাউনে গেছে অস্ট্রিয়া। ইউরোপজুড়ে করোনার নতুন করে বিস্তারে উদ্বেগ জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। বিবিসিকে সংস্থাটির আঞ্চলিক পরিচালক হ্যান্স ক্লুগ বলেছেন, ইউরোপে করোনা সংক্রমণ নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা খুব চিন্তিত। জরুরি ব্যবস্থা নেওয়া না হলে আগামী মার্চ মাস নাগাদ ইউরোপে পাঁচ লাখ মানুষের মৃত্যুর রেকর্ড হতে পারে।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন