টিকা নিয়ে আরেক ধাপ এগোনোর দাবি রাশিয়ার

বিজ্ঞাপন
default-image

আগামী অক্টোবর মাসে জনগণের বড় অংশের মধ্যে টিকা প্রয়োগের প্রস্তুতি নিচ্ছে রাশিয়া। দেশটির সরকার এমন তথ্য জানিয়েছে। রাশিয়ার শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী ডেনিস মানতুরভ দেশটির তাস সংবাদ সংস্থাকে গতকাল সোমবার জানান, ২০২১ সালের মধ্যে প্রতি মাসে তাঁরা কয়েক লাখ টিকার ডোজ তৈরি করবেন বলে আশা করছেন।

এএফপি ও সিএনবিসির খবরে জানা যায়, দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী মিখাইল মুরাসকো বলেন, মস্কোভিত্তিক গামেলিয়া ইনস্টিটিউটে করোনাভাইরাসের টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শেষ হয়েছে। রুশ সরকারি সংবাদ সংস্থা আরআইএয়ের গত শনিবারের খবরে জানানো হয়, মস্কোর দাবি, পরীক্ষায় কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই আশানুরূপ সাড়া মিলেছে।

রাশিয়ার ডাইরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড (আরডিআইএফ) এই টিকার ট্রায়ালে অর্থায়ন করছে। আরডিআইএফের মুখপাত্র সিএনবিসিকে গতকাল জানান, ক্লিনিক্যাল টেস্টের প্রাথমিক ধাপ রাশিয়া শেষ করেছে। এ মাসেই রাশিয়া বড় পরিসরে আরেক ধাপের পরীক্ষা শুরু করবে। ক্লিনিক্যাল গবেষণার এই ধাপে প্রমাণিত হবে টিকা কতটা কার্যকর।

তবে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। রাশিয়ার দ্বিতীয় অথবা তৃতীয় ধাপের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের তথ্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তালিকাভুক্ত হয়নি।

রাশিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী মুরাসকো বলেন, ভ্যাকসিনটি ব্যবহারের আগে নিয়মিত অনুমোদনের প্রয়োজন। প্রথমে চিকিৎসক ও শিক্ষকদের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। অক্টোবর মাসে গণপর্যায়ে ভ্যাকসিন দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে।

ফান্ডের প্রধান কিরিল দমিত্রিয়েভ বলেন, তিনি আশা করছেন, ১০ দিনের মধ্যে টিকার আনুষ্ঠানিক নিবন্ধনের কাজ শেষ হবে। যদি ১০ দিনের মধ্যে কাজ শেষ হয়, তাহলে এটাই প্রথম নিবন্ধিত করোনাভাইরাস টিকা হবে।

আরডিআইএফের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) কিরিল দমিত্রিয়েভ গত সপ্তাহে বলেন, যাঁরা ভাবতেও পারেননি টিকার দৌড়ে রাশিয়া প্রথম হবে, তাঁদের জন্য এটি একটি স্মরণীয় মুহূর্ত।

রুশ স্বাস্থ্যমন্ত্রী মিখাইল মুরাসকো শনিবার বলেন, সাইবেরিয়াভিত্তিক ভেক্তর গবেষণাগারে টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলছে। আগামী দুই মাসে আরও দুটি টিকা নিয়ে গবেষণা হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন