default-image

করোনা মহামারি নিয়ন্ত্রণে বিশ্বজুড়ে জোর তৎপরতা চলছে। জোরেশোরে চলছে নতুন নতুন টিকা উদ্ভাবনের চেষ্টা ও টিকাদান। কিন্তু করোনাভাইরাসের ধরনও পাল্টে যাচ্ছে দ্রুত। এ অবস্থায় ভবিষ্যতে করোনার নতুন ধরন (স্ট্রেইন) ঠেকাতে ‘দ্বিতীয় প্রজন্মের’ টিকা তৈরির কর্মসূচি হাতে নিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, আজ বুধবার থেকে ‘হেরা ইনকিউবেটর’ নামের ওই কর্মসূচি শুরু হওয়ার কথা। এই কর্মসূচির আওতায় ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান, গবেষণাগার, স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ ও গবেষকেরা একসঙ্গে কাজ করবেন বলে ফ্রান্সের সংবাদপত্র লেস ইকোকে জানিয়েছেন ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডের লিয়ন।

বিজ্ঞাপন

ইইউর এক মুখপাত্র বলেন, ‘করোনাভাইরাস নতুন নতুন রূপ নেবে। ভবিষ্যতেও এটা হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘করোনাভাইরাসের রূপান্তরের জন্য প্রস্তুত থাকাকে আমরা গুরুত্ব দিচ্ছি।’

করোনাভাইরাসের টিকাদানের প্রক্রিয়া ধীরগতিতে চলায় সমালোচনা রয়েছে।

এএফপির খবরে জানা যায়, ইইউয়ের সদস্যদেশগুলোকে অতিরিক্ত তহবিল বরাদ্দের জন্য আহ্বান জানানো হবে, যাতে টিকা সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে হওয়া চুক্তি পরিমার্জন করে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ভবিষ্যতে করোনাভাইরাসের নতুন ধরনের বিরুদ্ধে টিকার ডোজ নিশ্চিত করতে পারে।

অ্যাস্ট্রাজেনেকা, ফাইজার/বায়োএনটেক ও মডার্নার টিকা সরবরাহে দেরি হওয়ায় ইউরোপের দেশগুলোর চাপের মুখে রয়েছে ইইউর ওষুধ নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান। টিকা সরবরাহের ব্যবস্থা আরও গতিশীল করতে চাপ প্রয়োগ করছে ইইউভুক্ত দেশগুলো।

যুক্তরাষ্ট্রের জনসন অ্যান্ড জনসন করোনাভাইরাসের টিকা অনুমোদনের জন্য ইইউর কাছে আবেদন জানাবে। ইউরোপের ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থা গতকাল বলেছে, আগামী মার্চ মাসের মাঝামাঝি সময়ে এ নিয়ে তারা সিদ্ধান্ত জানাবে।

বিজ্ঞাপন
ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন