default-image

রাশিয়ার বিরোধী নেতা অ্যালেক্সি নাভালনিকে বিষ প্রয়োগের ঘটনায় রাষ্ট্রের কোনো দোষ দেখছে না ক্রেমলিন। বার্তাসংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদনে এ খবর দেওয়া হয়েছে।

রুশ প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ আজ বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, ‘জার্মানি ও ইউরোপের অন্য দেশগুলোয় আমাদের অংশীজনেরা এ বিষয়ে কোনো প্রকার চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছে যাক, তা আমরা চাই না। এখানে রাশিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলার কোনো কারণ নেই।’

বিজ্ঞাপন

পেসকভ আরও বলেন, নাভালনিকে বিষ প্রয়োগের ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাশিয়ার ওপর পশ্চিমা দেশগুলোর নতুন করে কোনো অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপেরও কোনো কারণ নেই।

ক্রেমলিন মুখপাত্র জোর দিয়ে বলেন, নাভালনির সঙ্গে যা ঘটেছে, তার অদ্যোপান্ত জানার চেষ্টা করছে রাশিয়া। তিনি আরও বলেন, নাভালনিকে বিষপ্রয়োগে কারও লাভ হবে বলে তিনি মনে করেন না।

নাভালনির ঘটনাটির পর পশ্চিমা দেশগুলো রাশিয়ার ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞার আহ্বান জানাচ্ছে। এসব দেশ বাল্টিক সাগরে নির্মাণাধীন নর্ড স্ট্রিম-২ প্রকল্প বন্ধেরও দাবি তুলেছে। ১ হাজার ১০০ কোটি মার্কিন ডলারের এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে রাশিয়া থেকে জার্মানিতে প্রাকৃতিক গ্যাসের সরবরাহ দ্বিগুণ হবে।

বিজ্ঞাপন

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সমালোচক হিসেবে পরিচিত নাভালনিকে নোভিচক নার্ভ এজেন্ট প্রয়োগ করা হয়েছে বলে গত বুধবার জানিয়েছে জার্মান কর্তৃপক্ষ। তিনি বর্তমানে জার্মানিতে চিকিৎসাধীন। গত মাসের শেষ দিকে সাইবেরিয়া থেকে আকাশপথে মস্কো ফেরার পথে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন নাভালনি। পরে উড়োজাহাজটি ঘুরিয়ে নিয়ে জরুরি অবতরণ করানো হয়। সেখান থেকে সাইবেরিয়ার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। এরপর নাভালনিকে নেওয়া হয় জার্মানিতে। চিকিৎসকেরা বুধবার বলেছেন, তাঁর অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। তবে তিনি এখনো কোমায়।

এর আগে ২০১৮ সালে রাশিয়ার সাবেক গুপ্তচর সের্গেই স্ক্রিপাল ও তাঁর মেয়ে ইউলিয়াকেও যুক্তরাজ্যে নোভিচক নার্ভ এজেন্ট প্রয়োগ করা হয়। সে সময়ও পশ্চিমা দেশগুলো রাশিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছিল।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন