বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সমালোচনার মধ্যেই গত বুধবার রাশিয়া ও গতকাল বৃহস্পতিবার ইউক্রেন সফর করেন জাতিসংঘ মহাসচিব গুতেরেস। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে তাঁর বৈঠকের পর এক যৌথ সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হয়। সম্মেলনে খোদ নিজের সংস্থার নিরাপত্তা পরিষদের ভূমিকার সমালোচনা করেন গুতেরেস। তিনি বলেন, ‘আমি পরিষ্কার করে বলছি, যুদ্ধ বন্ধে নিজেদের ক্ষমতা অনুযায়ী সবকিছু করতে এটি (নিরাপত্তা পরিষদ) ব্যর্থ হয়েছে।’ বিষয়টিকে হতাশাজনক বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন জাতিসংঘ মহাসচিব।
জেলেনস্কির উদ্দেশে মহাসচিব আরও বলেন, ‘আপনাকে ও ইউক্রেনের জনগণকে আমি আশ্বস্ত করতে এসেছি যে আমরা হাল ছেড়ে দেব না।’

তবে গুতেরেসের দাবি, নিরাপত্তা পরিষদ কার্যকর ভূমিকা না নিতে পারলেও জাতিসংঘ অন্য কাজগুলো চালিয়ে যাচ্ছে। বিবিসিকে তিনি বলেন, ইউক্রেনে জাতিসংঘের ১ হাজার ৪০০ কর্মী নিয়োজিত আছেন। তাঁরা খাবার, নগদ অর্থ সরবরাহসহ বিভিন্ন সহায়তা দিচ্ছেন।

বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলনে জেলেনস্কি বলেন, ইউক্রেনে রাশিয়া যেসব যুদ্ধাপরাধ করেছে, তা দেখার সুযোগ গুতেরেসের হয়েছে। ইউক্রেনে রাশিয়ার কর্মকাণ্ডকে আবারও ‘জেনোসাইড’ বলে উল্লেখ করেছেন তিনি।

জাতিসংঘ মহাসচিবের ইউক্রেন সফর চলাকালে কিয়েভের সেন্ট্রাল শেভচেঙ্কো এলাকায় দুটি বিস্ফোরণ হয়েছে। শহরের মেয়রের তথ্যানুসারে এ ঘটনায় তিনজন আহত হয়েছেন। তাঁদের হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

কিয়েভের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় বোরোদিয়াঙ্কা শহরে যুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্ত একটি ভবনের সামনে দাঁড়িয়ে সংবাদকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন গুতেরেস। তিনি বলেন, নিজের পরিবার এমন পরিস্থিতিতে থাকলে কেমন লাগত, তা অনুভব করতে পারছেন তিনি।ইউক্রেনের দক্ষিণের শহর মারিউপোলের হাজারো মানুষের জীবন রক্ষার জন্যও আকুল আবেদন জানান জাতিসংঘ মহাসচিব।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন