বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সোমবার তাঁরা সীমান্ত পার হয়ে পোল্যান্ডে প্রবেশের চেষ্টা করেন। মঙ্গলবার সকালে পোল্যান্ডের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, কুজনিকায় অভিবাসনপ্রত্যাশীরা সীমান্তবেষ্টনীতে আক্রমণ করলে তাঁদের প্রতিহতের চেষ্টা করেছেন তাদের সেনারা।
এদিকে বেলারুশের ঘনিষ্ঠ মিত্র রাশিয়া অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ওপর টিয়ার গ্যাসের শেল নিক্ষেপের নিন্দা জানিয়েছে। ওই সীমান্ত এলাকায় জরুরি অবস্থা ঘোষণা করায় সেখানে গণমাধ্যম ও বেসরকারি সংস্থাকে মানবিক সাহায্য কার্যক্রম চালানো বা খবর সংগ্রহে বেগ পেতে হচ্ছে।

পোল্যান্ড ও তার মিত্ররা এই পরিস্থিতির জন্য বেলারুশকে দায়ী করছে। তারা বলছে, রাশিয়ার ইন্ধনে তারা মানুষকে পোল্যান্ডে প্রবেশের উসকানি দিচ্ছে, যাদের অনেকে মধ্যপ্রাচ্যের নাগরিক। দুই পক্ষের বাগ্‌যুদ্ধের মধ্যেই তৃণমূল পর্যায়ের বেসরকারি সংস্থাগুলো ইউরোপের অন্যান্য দেশ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি মানুষের জীবন বাঁচাতে মানবিক পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, পরিস্থিতি খারাপ হওয়ায় পোল্যান্ডে তেল সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে বেলারুশ। গত বছর বেলারুশের প্রেসিডেন্ট হিসেবে লুকাশেঙ্কো নির্বাচনে বিজয়ের পর ইইউ-বেলারুশ সম্পর্ক মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিবিসি জানিয়েছে, পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে সোমবার জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন লুকাশেঙ্কো। ইরাক বলছে, তারা শরণার্থীদের ফেরত নেবে। আজ বৃহস্পতিবার ২০০ শরণার্থীকে ফেরানোর মাধ্যমে এ কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। কিন্তু অনেক শরণার্থী ইরাকে ফিরতে নারাজ।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন