ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, ‘লাভরভের মন্তব্যের জন্য প্রেসিডেন্ট পুতিন ক্ষমা চেয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী তা গ্রহণ করেছেন। এ ছাড়া ইহুদি জনগণ ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ইহুদি হত্যাকাণ্ডের শিকার ব্যক্তিদের স্মৃতির প্রতি তাঁর মনোভাব পরিষ্কার করার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।’

গত রোববার ইতালির একটি টেলিভিশন চ্যানেলের অনুষ্ঠানে লাভরভকে ইউক্রেন সংকট নিয়ে প্রশ্ন করা হয়। সেখানে বলা হয়, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি একজন ইহুদি। এরপরও ইউক্রেনকে নাৎসি প্রভাবমুক্ত করতে অভিযান চালানো হয়েছে বলে রাশিয়ার বক্তব্যের কারণ কী?

জবাবে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘জেলেনস্কি ইহুদি, তাতে কী হয়েছে? এই বাস্তবতার নিরিখে তো ইউক্রেনে নাৎসি শক্তির উপস্থিতি অস্বীকার করা যাবে না। আমি বিশ্বাস করি, হিটলারের শরীরেও ইহুদি রক্ত ছিল। এমনকি তীব্র ইহুদিবিদ্বেষীদের অনেকেই ইহুদি।’

সের্গেই লাভরভের এমন মন্তব্যের পর ইসরায়েলের রাজনীতিকদের মধ্যে সমালোচনার ঝড় ওঠে। ঘটনার ব্যাখ্যা চেয়ে দেশটিতে নিযুক্ত রুশ রাষ্ট্রদূতকে তলব করা হয়। ক্ষমা চাইতেও বলা হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ৬০ লাখ ইহুদিকে হত্যা করেছিল হিটলারের নেতৃত্বাধীন জার্মানির নাৎসি বাহিনী।

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট বলেছিলেন, লাভরভ তাঁর মন্তব্যের মধ্য দিয়ে ওই হত্যাকাণ্ডের জন্য ইহুদিদের দায়ী করেছেন। এই মন্তব্য ‘ক্ষমার অযোগ্য’ বলে উল্লেখ করেন ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়ার লাপিদ।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন