বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্যান্ডোরা পেপারসে ফাঁস হওয়া নথিতে দেখা গেছে, আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলীয়েভের পরিবার গোপনে লন্ডনে ১৭ সম্পত্তি কিনেছিলেন। এর মধ্যে রয়েছে প্রেসিডেন্টের ছেলের জন্য কেনা ওই ভবনটি। শুধু প্যান্ডোরা পেপারসে ফাঁস হওয়া কেলেঙ্কারিই নয়, ইউরোপের বিভিন্ন দেশে দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে আলীয়েভের পরিবারের বিরুদ্ধে।

প্যান্ডোরা পেপারস বলছে, ২০০৯ সালে আজারবাইজানের প্রেসিডেন্টের এক পারিবারিক বন্ধুর মালিকানাধীন কোম্পানির মাধ্যমে লন্ডনের মেফেয়ার এলাকায় ওই অফিস ভবনটি কেনা হয়েছিল। এক মাস পরে তা হায়দার আলীয়েভের নামে হস্তান্তর করা হয়।

অনুসন্ধানী ওই গবেষণায় দেখা গেছে, লন্ডনের মেফেয়ারে হায়দারের নামে কেনা ভবনের কাছেই আলীয়েভের পরিবারের মালিকানায় থাকা আরেকটি ভবন ছিল। ২০১৮ সালে ব্রিটিশ রাজপরিবারের মালিকানাধীন ক্রাউন স্টেটের কাছে ৬ কোটি ৬০ লাখ পাউন্ডে সেটি বিক্রি করা হয়। এ বিষয়ে ক্রাউন স্টেট বলছে, ওই সম্পত্তি কেনার সময় আইন অনুযায়ী সব ধরনের পরীক্ষা চালানো হয়েছিল। তবে এখন বিষয়টি আরও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

অফশোর কোম্পানিগুলোতে বিনিয়োগকারী হিসেবে যাঁদের নাম পাওয়া গেছে, তাঁদের মধ্যে বিভিন্ন দেশের সাবেক ও বর্তমান ৩৫ জন নেতা এবং ৩০০-এর বেশি সরকারি কর্মকর্তা রয়েছেন। ৯০টির বেশি দেশের এসব কর্মকর্তার মধ্যে মন্ত্রী, বিচারক, মেয়র ও সেনাবাহিনীর জেনারেলরা রয়েছেন। আরও আছেন কোটিপতি, বিভিন্ন ক্ষেত্রের জনপ্রিয় ব্যক্তি ও ব্যবসায়ীরা। এই তালিকায় রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার, আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলীয়েভ, চেক প্রজাতন্ত্রের প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রে বাবিসের মতো নেতাদের নাম উঠেছে।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন