বেশ কিছুদিন ধরে আক্রান্তের হার কম থাকলেও ৪ ডিসেম্বর থেকে ফ্রান্সে নতুন করে করোনার সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। এদিন দেশটিতে ৫০ হাজার মানুষের করোনা শনাক্ত হয়। ফ্রান্সের জনস্বাস্থ্য দপ্তরের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, শনিবার দেশটিতে ২৪ ঘণ্টায় ১ লাখ ৪ হাজার ৬১১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

আগামীকাল সোমবার ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাখোঁ তাঁর সরকারের গুরুত্বপূর্ণ সদস্যদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স বৈঠক করবেন। সেখানে নতুন কোভিড বিধিনিষেধ আরোপ নিয়ে আলোচনার কথা রয়েছে। করোনার নতুন ধরন অমিক্রনের দ্রুত বিস্তার নিয়ে উদ্বেগে রয়েছেন ফ্রান্সের কর্মকর্তারা।

এ পর্যন্ত ফ্রান্সে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১ লাখ ২২ হাজার ৫৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এখন পর্যন্ত দেশটিতে টিকার পূর্ণ ডোজ নিয়েছেন ৭৬ দশমিক ৫ শতাংশ মানুষ।

ইতিমধ্যে শুক্রবার ফ্রান্সের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ সুপারিশ করেছে, প্রাপ্তবয়স্করা যেন প্রাথমিক পর্বের টিকা নেওয়ার তিন মাস পর বুস্টার ডোজ নেন। দেশটির সরকার এখন শুধু বুস্টার ডোজ সম্পন্নকারীদেরই হেলথ পাস দিচ্ছে। বিদেশভ্রমণ ছাড়াও ক্যাফে, রেস্তোরাঁ ও জনাকীর্ণ জায়গায় যেতে এ পাস দেখাতে হয়।

ফ্রান্সের কিছু অঞ্চলের কর্তৃপক্ষ তাদের নিজেদের তৈরি বিধিনিষেধ কার্যকর করেছে। গত মাসের শেষের দিকে সেভোয় এলাকার কর্তৃপক্ষ স্থানীয় মানুষের জন্য আবারও মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করেছে। জনাকীর্ণ কক্ষের ভেতরে কিংবা বাইরে সব জায়গাতেই মাস্ক পরতে হবে স্থানীয় লোকদের।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন