default-image

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে যাওয়ায় ফ্রান্সে তৃতীয় দফায় লকডাউন দেওয়া হয়েছে। গতকাল শনিবার থেকে শুরু হয়েছে দেশজুড়ে লকডাউন। একই সঙ্গে সকাল–সন্ধ্যা কারফিউও দেওয়া হয়েছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, ফ্রান্সের সব স্কুল ও কম প্রয়োজনীয় দোকানপাট চার সপ্তাহের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। প্রতিদিন স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত কারফিউ বলবৎ থাকবে। গত শুক্রবার দেশটির নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) গুরুতর অসুস্থ কোভিড রোগীদের সংখ্যা ১৪৫ জন বেড়েছে। গত পাঁচ মাসে এটিই এ ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সংখ্যা।

ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাখোঁ জানিয়েছেন, কোভিড রোগীদের জন্য হাসপাতালগুলোর সক্ষমতা বাড়ানোর চেষ্টা চলছে। বর্তমানে দেশটিতে শুধু আইসিইউতে চিকিৎসাধীন আছেন পাঁচ হাজার রোগী। গত শুক্রবার ফ্রান্সে করোনাভাইরাসে এক দিনেই নতুন সংক্রমিত হয়েছেন ৪৬ হাজারের বেশি মানুষ। আর সেদিন মৃত্যু হয়েছে ৩০৪ জনের।  

বিজ্ঞাপন

গতকাল শনিবার থেকে দেশটিতে জাতীয় লকডাউন শুরু হয়েছে। আগামী মঙ্গলবারের পর থেকে ১০ কিলোমিটারের বেশি দূরত্বে যেতে চাইলে সাধারণ নাগরিকদের উপযুক্ত কারণ দর্শাতে হবে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

এর আগে অবশ্য ফ্রান্সে সরকারিভাবে লকডাউনে না যাওয়ার বিষয়ে ভাবা হয়েছিল। কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই সেই ভাবনায় বদল আনতে হলো। করোনার টিকা দেওয়ার কর্মসূচিতেও কিছুটা পিছিয়ে আছে দেশটি। তবে ফ্রান্সে এরই মধ্যেই করোনাভাইরাসের একাধিক ধরন শনাক্ত হয়েছে।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন