default-image

ফ্রান্স ও সুইডেনের পরীক্ষাগারে পরীক্ষা করে রাশিয়ার বিরোধীদলীয় নেতা অ্যালেক্সেই নাভালনিকে (৪৪) বিষ প্রয়োগের প্রমাণ মিলেছে। জার্মানির সরকার সোমবার এ তথ্য প্রকাশ করেছে। এর আগে জার্মানির চিকিৎসকেরাও তাঁদের পরীক্ষায় বিষ প্রয়োগের প্রমাণ পাওয়ার কথা দাবি করেন।
নাভালনিকে গত মাসে যেখানে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছিল বলে অভিযোগ রয়েছে, সেই এলাকার এক নির্বাচনে জয় পেয়েছেন তাঁর দুই মিত্র।

নাভালনি বর্তমানে জার্মানির বার্লিন শহরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাঁর শরীরে বিষ প্রয়োগে খোদ রুশ সরকার জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। রাশিয়া সরকারিভাবে এ ধরনের অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করেছে।

বিজ্ঞাপন
আমরা আবার রাশিয়ার প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি, তারা এ ঘটনার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিক। পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে আমরা আমাদের ইউরোপীয় অংশীদারদের সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগ রেখেছি।
স্টেফেন জাইবার্ট, জার্মান সরকারের মুখপাত্র

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে জানানো হয়, ফ্রান্স ও সুইডেনের দুই বিশেষ ল্যাবে স্বতন্ত্রভাবে নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। পরীক্ষার প্রাথমিক ফলে তারা নিশ্চিত হয়েছে, অ্যালেক্সেই নাভালনির দেহে নোভিচক নামের নার্ভ এজেন্ট প্রয়োগ করা হয়েছে। ঘটনা তদন্তে রাশিয়াকে সহযোগিতা করার জন্য নতুন করে আহ্বান জানানো হয়েছে।
জার্মান সরকারের মুখপাত্র স্টেফেন জাইবার্ট সোমবার এক বিবৃতিতে বলেন, ‘আমরা আবার রাশিয়ার প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি, তারা এ ঘটনার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিক। পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে আমরা আমাদের ইউরোপীয় অংশীদারদের সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগ রেখেছি।’

নাভালনি ২০ আগস্ট সাইবেরিয়া থেকে আকাশপথে মস্কো যাওয়ার পথে অসুস্থ হয়ে পড়েন। রাশিয়ায় কিছুদিন চিকিৎসার পর তাঁকে জার্মানিতে নেওয়া হয়। সম্প্রতি দেশটি জানায়, নাভালনির দেহে নোভিচক নামের নার্ভ এজেন্ট প্রয়োগ করা হয়েছে। জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল রাশিয়ার কাছে এ ঘটনার বিষয়ে জবাব চেয়েছেন। পুতিনের সমালোচকেরা বলছেন, পথের কাঁটা রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে দূর করতেই ক্রেমলিন এই বিষ প্রয়োগ করেছে।

পার্লামেন্ট নির্বাচনে সাইবেরিয়া অঞ্চলের টোমাস্ক শহরের দুটি স্থানীয় আসনে জয় পেয়েছেন নাভালনির দুই মিত্র। সোমবার প্রকাশিত নির্বাচনের আগাম ফল থেকে এই তথ্য মিলেছে বলে বার্তা সংস্থা এএফপির এক খবরে জানানো হয়।

আঞ্চলিক নির্বাচন কার্যালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ফলে দেখা যাচ্ছে, দুটি আসনে জিতেছেন নাভালনির মিত্র আন্দ্রে ফাতেইয়েভ ও কেসিনিয়া ফাদেইয়েভা।

আঞ্চলিক নির্বাচন কার্যালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ফলে দেখা যাচ্ছে, দুটি আসনে জিতেছেন নাভালনির মিত্র আন্দ্রে ফাতেইয়েভ ও কেসিনিয়া ফাদেইয়েভা। নির্বাচনের সার্বিক ফলাফলে সেখানে ক্ষমতাসীন দল ইউনাইটেড রাশিয়া মোট ভোটের ২৪ দশমিক ৪৬ শতাংশ পেয়ে এগিয়ে রয়েছে। অবশ্য, এই ফল গতবারের তুলনায় খুবই খারাপ। প্রায় ৫ লাখ জনসংখ্যার এই শহরে ২০১৫ সালের নির্বাচনে দলটি পেয়েছিল ৫২ দশমিক ২৭ শতাংশ ভোট।

বিজ্ঞাপন

এই ভোটের প্রচারণার জন্যই গত মাসে সাইবেরিয়ায় গিয়েছিলেন নাভালনি। তাঁকে বিষ প্রয়োগের ঘটনাটি ভোটের মাঠে প্রভাব ফেলেছে বলে মনে করছেন অনেকে। নাভালনির অনুসারীদের বিশ্বাস, তাঁর দেহে নিষিদ্ধ যে রাসায়নিক অস্ত্র প্রয়োগ করা হয়েছে, তা রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া সম্ভব হয়নি।
নির্বাচনে জেতার পর নাভালনির মিত্র কেসিনিয়া ফাদেইয়েভা টুইটারে লিখেছেন, ‘টোমাস্কের এই নির্বাচনে জেতার জন্য এখানে যা ঘটেছিল, তা অনুঘটক হিসেবে কাজ করেছে। আমি মনে করি, এই বিষয়টি প্রত্যেকেই বুঝতে পারবেন।’

মন্তব্য পড়ুন 0