বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়েছে, ইউক্রেনের সীমান্তে প্রায় এক লাখ সেনা মোতায়েন করেছে রাশিয়া। এই দুই দেশের মধ্যে সাম্প্রতিক উত্তেজনায় ইউরোপসহ অন্য ইউক্রেন মিত্রদেশগুলো উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। এ ছাড়া ইউক্রেনে হামলা চালালে রাশিয়া বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার মতো পদক্ষেপসহ অন্যান্য পদক্ষেপ নেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছে।

এই পরিস্থিতিতে বাইডেন কথা বললেন শলৎজের সঙ্গে। এক টুইট বার্তায় বাইডেন লিখেছেন, ওলাফকে অভিনন্দন জানাতে ফোন করেছিলেন তিনি। রাশিয়ার সামরিক পদক্ষেপসহ বৈশ্বিক বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

রাশিয়া ও ইউক্রেন ইস্যুতে কূটনৈতিক তৎপরতা বাড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এর আগে প্রেসিডেন্ট বাইডেন যুক্তরাজ্যসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশের সরকারপ্রধানের সঙ্গে কথা বলেছেন। এ ছাড়া গত মঙ্গলবার খোদ রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। এ সময় পুতিনকে তিনি বলেন, ইউক্রেনে হামলা চালালে রাশিয়ার বিরুদ্ধে কঠোর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে।

বাইডেন ও শলৎজের কথোপকথনের পর একটি বিবৃতি দিয়েছে হোয়াইট হাউস। এতে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের মহামারি মোকাবিলা, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলা, ইউক্রেনের আশপাশে রাশিয়ার সামরিক তৎপরতাসহ বিভিন্ন বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে দুই নেতার মধ্যে।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন