default-image

ওয়ালি ইউক্রেন যুদ্ধে তাঁর অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিয়ে বলেন, ইউক্রেনে যাওয়ার পর সেখানকার বাস্তবতা দেখে তাঁর মোহভঙ্গ হয়েছে। কুইবেকে নিজের বাড়িতে বসে দেশটির সংবাদমাধ্যম লা প্রেসেকে গত শুক্রবার ওয়ালি বলেন, ইউক্রেনে গিয়ে যে কমান্ডারের অধীন ছিলেন, সেই কমান্ডার আসলে জানেন না ইউক্রেনে তাঁর মতো আরও যেসব বিদেশি স্বেচ্ছায় যুদ্ধ করতে ইউক্রেনে গেছেন, তাঁদের নিয়ে করণীয় কী। লড়াই করার জন্য একটি সুযোগের অপেক্ষায় থেকে ক্লান্ত হয়ে পড়ার পর ওয়ালি নরমান ব্রিগেডে যোগ দেন।

নরমান ব্রিগেড হলো বেসরকারি একটি সেনা ইউনিট। নরমান ব্রিগেডের নেতৃত্বে আছেন কিউবেকের আরেকজন সাবেক সেনা। তবে নরমান ব্রিগেডের একাধিক সদস্য লাস প্রেসেকে বলেন, প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী অস্ত্র ও অন্যান্য সরঞ্জাম কখনো দেখাননি ব্রিগেডের প্রধান। এমনকি ব্রিগেডের কিছু সদস্য বলেন, আত্মরক্ষামূলক কোনো সরঞ্জাম ছাড়াই তাঁদের সম্মুখসমরে অংশ নিতে হয়েছে।

নরমান ব্রিগেডের প্রায় ৬০ জন্য যোদ্ধা যুদ্ধের ময়দান ছেড়ে পালিয়েছেন। ব্রিগেড কমান্ডার লা প্রেসেকে বলেন, কিছু সদস্য যুক্তরাষ্ট্রের পাঠানো পাঁচ লাখ ডলারের অস্ত্র চুরি করে তাঁদের জন্য নতুন একটি ইউনিট খুলেছে।

শেষে রাজধানী কিয়েভের কাছে ইউক্রেনীয় সেনাদের একটি ইউনিটে যোগ দেন ওয়ালি। তবে সেখানে যোগ দিয়েও পরিস্থিতির কোনো পরিবর্তন ঘটেনি। অস্ত্র, খাবার ও জ্বালানিসংকটে পড়েন তিনি। সেই অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিয়ে ওয়ালি লা প্রেসেকে বলেন, ‘আপনাকে এমন একজনকে চিনতে হবে, যিনি এমন একজনকে চিনতেন, যিনি আপনাকে বলেছিলেন কিছু পুরোনো নাপিতের দোকানে তারা আপনাকে একটি একে-৪৭ দেবে। এমনকি মাঝেমধ্যে খাবারও দিত সাধারণ মানুষ।’

অবশেষে মানুষকে ভয় দেখানোর জন্য হলেও জানালায় দুটি গুলি ছুড়েছেন বলে জানান ওয়ালি। দনবাস অঞ্চলে তাঁকে আরও দুজন ইউক্রেনীয় সেনার সঙ্গে পাঠানো হয়। সেখানে রুশ বাহিনীর ট্যাংক ও গোলার নির্ভুল নিশানায় পড়েন তাঁরা। এরপরই দ্রুত বাড়ি ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নেন তিনি।

ওয়ালি বলেন, ‘আমি তাঁদের বলেছিলাম, এভাবে রুশ বাহিনীর মুখে পড়বেন না। কিন্তু তাঁরা আমার কথা শোনেননি। গোলা অত্যন্ত দ্রুতগতিতে আমাদের দিকে ছুটে আসতে দেখেছি। আমি আতঙ্কিত হয়ে পড়ি। আমি কিছুই শুনছিলাম না। তাৎক্ষণিক আমার মাথাব্যথা শুরু হয়। পরিস্থিতি ছিল সত্যি সহিংস।’

তবে স্বেচ্ছায় যুদ্ধ করতে ইউক্রেনে যাওয়া যোদ্ধাদের মধ্যে ওয়ালির মতো আরও অনেকে অল্প দিনের মধ্যেই দেশে ফিরেছেন। রেডিটের মাধ্যমে ‘ভলান্টিয়ারস ফর ইউক্রেন’ ফোরামের মাধ্যমে যাঁদের যুদ্ধে যোগ দেওয়ার কথা ছিল এবং যাঁরা ইতিমধ্যে ইউক্রেনে গেছেন, তাঁরাও অনেকটা একই অভিজ্ঞতার কথা জানিয়েছেন।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন