মাখোঁর এবার মাখোমাখো সুর

বিজ্ঞাপন
default-image

অবশেষে ব্যাপক গণ-আন্দোলনের মুখে নরম হলেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাখোঁ। আন্দোলনকারীদের শান্ত করতে ন্যূনতম মজুরি বৃদ্ধি ও কর ছাড়ের প্রতিশ্রুতি দিলেন তিনি। গতকাল সোমবার স্থানীয় সময় রাত আটটায় জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে এ প্রতিশ্রুতি দেন মাখোঁ।

নতুন ঘোষণা অনুযায়ী, ২০১৯ সাল থেকে ন্যূনতম মজুরি মাসে ১০০ ইউরো করে বাড়ানো হবে। নিম্ন আয়ের অবসর ভাতা গ্রহণকারীদের জন্য পরিকল্পিত কর বৃদ্ধি বাতিল করা হবে। এ ছাড়া নিয়োগকর্তারা কর্মীদের জন্য বছরের একটি করমুক্ত বোনাস দেবেন। অবশ্য ধনীদের ওপর কর বাড়ানোর কোনো ঘোষণা দেননি মাখোঁ। তিনি বলেন, ‘এটা করলে ফ্রান্স দুর্বল হয়ে পড়বে। কারণ, ফ্রান্সের এখন কর্মসংস্থান বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।’

ওই ভাষণে দেশে জরুরি অবস্থা জারি ঘোষণা করেন প্রেসিডেন্ট। তিনি বলেন, ‘প্রথমে আমি দেশের জন্য জরুরি অর্থনৈতিক অবস্থা ঘোষণা করছি। আমরা এমন একটি ফ্রান্স গড়ে তুলতে চাই যেখানে যে কেউ তার কর্মের মধ্যে মর্যাদা নিয়ে বেঁচে থাকতে পারে এবং এ ক্ষেত্রে আমরা খুবই মন্থর গতিতে এগিয়ে যাচ্ছি।’

এ ঘোষণার পর সরকারের মন্ত্রী অলিভার ডাসট গণমাধ্যমকে জানান, এসব সংস্কারের ফলে ব্যয় বাড়বে ৮০০ কোটি থেকে ১০০০ কোটি ইউরো।

টানা চার সপ্তাহ ছুটির দিনে ব্যাপক বিক্ষোভে ফ্রান্সের পরিস্থিতি নাজুক। বিক্ষোভে বিভক্ত হয়ে পড়েছে দেশটি। একই সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে ব্যাপক ধরপাকড় অব্যাহত রেখেছে নিরাপত্তা বাহিনী। জ্বালানি তেলের বাড়তি কর, জীবনযাত্রার নিম্নমান আর দৈনন্দিন ব্যবহারের জিনিসপত্রের লাগামছাড়া মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে গত ১৭ নভেম্বর থেকে ফ্রান্সে চলছে এই ‘ইয়েলো ভেস্ট’ আন্দোলন। এই আন্দোলনে ব্যাপক বিক্ষোভ ও গ্রেপ্তারের ঘটনাও ঘটে। পরিস্থিতি শান্ত করতে মাখোঁ জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার ঘোষণা দেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন