জিব্রাল্টার হলো সমুদ্রের সংকীর্ণ একটি অংশ, যা মরক্কোকে স্পেন থেকে আলাদা করেছে।

জব্দ হওয়া তিনটি ডুবো যানের মধ্যে একটি পুরোপুরি নির্মিত হয়েছে। বাকি দুটি এখনো নির্মাণাধীন। কোকেন পাচারে ফ্রান্সের একটি চক্রকে সরবরাহ করার উদ্দেশ্যে এই দুটি ডুবোযান নির্মাণ করা হচ্ছিল বলে মনে করা হচ্ছে।

কর্মকর্তারা ১৪ কেজি হাশিশ, ৮ কেজি গাঁজা, ১ লাখ ৫৭ হাজার ৩০০ ইউরো এবং ৬টি বড় আকারের ড্রোনও জব্দ করেছেন। জিপিএস নেভিগেশন সিস্টেম যুক্ত করার মাধ্যমে বিশ্বের যেকোনো জায়গা থেকে ইন্টারনেট ডিভাইস ব্যবহারের মাধ্যমে এসব যান মাদক পাচারকারীরা সম্ভবত পরিচালনা করতে পারত।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের মধ্যে বাবা–ছেলেও রয়েছেন। পুলিশ জানিয়েছে, তাঁদের একজন হেলিকপ্টারের অভিজ্ঞ পাইলট। এ ধরনের অত্যাধুনিক যান নির্মাণে তাঁর কারিগরি জ্ঞান আছে।

কর্মকর্তারা দাবি করেছেন, বিশেষ করে মাদক পরিবহনের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন ধরনের আকাশ, স্থল ও নৌযান নির্মাণে চক্রটি দক্ষ। চক্রটি এসব যান ডেনমার্ক, ইতালি ও ফ্রান্স ও স্পেনের অপরাধী চক্রগুলোকে সরবরাহ করে থাকে বলে অভিযোগ করছেন তাঁরা।

তদন্তকারী ব্যক্তিরা এই প্রথম মাদক পরিবহনের উদ্দেশ্যে তৈরি ডুবো যানের হদিস পেল। এই বছরের শুরুর দিকে মধ্য আমেরিকার পথে থাকা চার টন কোকেইনসহ একটি সেমি–সাবমারসিবল (আধা ভাসমান দেখতে) নৌযান আটক করে কলম্বিয়ার নৌবাহিনী।

মরক্কোর নিকটবর্তী হওয়ায় ইউরোপে মাদক প্রবেশের মূল পয়েন্টে পরিণত হয়েছে স্পেন। মরক্কো গাঁজা উৎপাদনকারী প্রধান দেশগুলোর একটি। এ ছাড়া দক্ষিণ আমেরিকার সাবেক উপনিবেশগুলোর সঙ্গেও স্পেনের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। বিশ্বের বেশির ভাগ কোকেইন এই মহাদেশে উৎপাদিত হয়।

ইউরোপকে আফ্রিকা থেকে পৃথক করেছে ১৫ কিলোমিটারের জিব্রাল্টার প্রণালি। বিশেষ করে এই পথটি মাদক পাচারকারীদের প্রিয়। এই পথে স্পিডবোট ব্যবহার করে গাঁজা পাচারের অভিযোগে গত বছরের এপ্রিলে ১০০ সন্দেহভাজনকে গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন