রাত্রিকালীন ভিডিও ভাষণে জেলেনস্কি বলেন, ‘প্রথমবারের মতো এই এলাকায় আমরা দুই দিনের অস্ত্রবিরতি পেয়েছি। আমরা শতাধিক বেসামরিক নারী ও শিশুকে সরিয়ে আনতে পেরেছি।’

জেলেনস্কি আরও বলেন, সরিয়ে আনা এসব লোকজনের প্রথম দলটি সোমবার সকালে ইউক্রেন নিয়ন্ত্রিত জাপোরিঝঝিয়ায় পৌঁছাবে। এর আগে তাদের নিরাপদে সরিয়ে আনার কাজটি এগিয়ে যাচ্ছে বলে নিশ্চিত করেছে জাতিসংঘ।

ইস্পাত কারখানার ভেতরের ভিডিও চিত্রে দেখা যায়, ধ্বংসস্তূপ মাড়িয়ে বেসামরিক লোকজনকে বাসে উঠতে সাহায্য করছেন আজভ রেজিমেন্টের সদস্যরা। শিশুদের সঙ্গে সরিয়ে আনা একজন বৃদ্ধা বলেন, আটকে থাকা লোকজনের খাবার দ্রুত ফুরিয়ে যাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, ‘শিশুরা সব সময় খেতে চায়। আপনি জানেন, বয়স্করা ধৈর্য ধরতে পারেন।’

রয়টার্সের আলোকচিত্রী জানান, মারিউপোল থেকে উদ্ধার হওয়া ৫০ জনের বেশি বেসামরিক লোকজন রোববার রুশ নিয়ন্ত্রিত ভূখণ্ডের অস্থায়ী একটি আশ্রয়কেন্দ্রে এসে পৌঁছায়। জাতিসংঘ ও রুশ সামরিক যানের একটি বাসে চড়ে এই বেসামরিক লোকজন মারিউপোলের ৩০ কিলোমিটার পূর্বে বেজিমেনে গ্রামে যান। সেখানে এক সারি নীল তাঁবু স্থাপন করা হয়েছে।

মারিউপোল সিটি কাউন্সিল জানিয়েছে, ইস্পাত কারখানার বাইরের বেসামরিক নাগরিকদের সোমবার সকালে সরিয়ে আনার একটি পরিকল্পনা বাতিল করা হয়েছে।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে কথিত ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ শুরু করে রাশিয়া। ইউক্রেনীয় বাহিনীর তীব্র প্রতিরোধের মুখে কিয়েভ দখলে ব্যর্থ হয়ে দক্ষিণ ও পূর্বাঞ্চলে অভিযান জোরদার করে রুশ বাহিনী।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন