বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এ মুহূর্তে খামারটিতে খাদ্য নিরাপত্তাসংক্রান্ত কোনো ঝুঁকি নেই বলে জানিয়েছে এপিএইচএ। ওই খামারে রোগটির সংক্রমণ কীভাবে হলো, তা খতিয়ে দেখতে তদন্ত করা হচ্ছে। এ ছাড়া সংক্রমণ রোধ করতে সেখানে থাকা গবাদিপশুর চলাচলের ওপর বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে দেশটির প্রধান ভেটেরিনারি কর্মকর্তা ক্রিস্টাইন মিডলমিস বলেন, ম্যাড কাউ রোগ শনাক্ত হওয়ার পর যুক্তরাজ্যে এই রোগে আরও পশুর আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। দেশটিতে খাদ্য নিরাপত্তা ও জনস্বাস্থ্যের ওপর আপাতত কোনো ঝুঁকি নেই।

ক্রিস্টাইন মিডলমিস আরও বলেন, ‘আমরা জানি এটি খামারিদের জন্য কষ্টকর হতে যাচ্ছে। কঠিন এই সময়ে আমরা পরামর্শ দেওয়ার জন্য প্রস্তুত আছি।’

যুক্তরাজ্যে ২০১৪ সাল থেকে এখন পর্যন্ত পাঁচটি পশুর শরীরে ম্যাড কাউ রোগ শনাক্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে এপিএইচএ। এর আগে গত শতকের নব্বইয়ের দশকে রোগটি দেশটিতে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়ে। সে সময়ে ম্যাড কাউ রোগ নিয়ন্ত্রণে লাখ লাখ গরু হত্যা করা হয়েছিল।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন