default-image

ব্রিটিশ রাজপরিবারের বিরুদ্ধে বর্ণবাদের সুস্পষ্ট অভিযোগ তুলেছেন প্রিন্স হ্যারি ও মেগান মার্কেল। তবে পরিবার ছেড়ে যাওয়া এ দম্পতির এমন অভিযোগ মানতে নারাজ হ্যারির বড় ভাই প্রিন্স উইলিয়াম। অভিযোগের প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, ‘আমাদের পরিবার মোটেও বর্ণবাদী নয়।’ আজ বৃহস্পতিবার পূর্ব লন্ডনের স্ট্যার্টফোর্ডে একটি স্কুল পরিদর্শনের সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ মন্তব্য করেন তিনি। খবর বিবিসির।
এ সময় উইলিয়ামের কাছে এক সাংবাদিক সরাসরি জানতে চান, ‘রাজপরিবার কি বর্ণবাদী, স্যার?’

এমন প্রশ্নের জবাবে ডিউক অব ক্যামব্রিজ উইলিয়ামের স্পষ্ট জবাব, ‘আমাদের পরিবার মোটেও বর্ণবাদী নয়।’

চলমান বিতর্কের মধ্যে প্রিন্স উইলিয়াম রাজপরিবারের প্রথম ব্যক্তি, যিনি গণমাধ্যমের সামনে বিষয়টি নিয়ে সরাসরি কোনো মন্তব্য করলেন।

এদিকে প্যালেসের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ঘটনাগুলো একেকজনের কাছে একেক রকম মনে হতে পারে। তবে মেগান সব সময়ই পরিবারের সদস্য হিসেবে ভালোবাসার মানুষ।’

বিজ্ঞাপন

৭ মার্চ যুক্তরাষ্ট্রের সিবিএস টিভিতে প্রচারিত হয় ‘অপরাহ্ উইথ মেগান অ্যান্ড হ্যারি: এ সিবিএস প্রাইমটাইম স্পেশাল’ শিরোনামের বিশেষ সাক্ষাৎকার। সেখানে হ্যারি–মেগান দম্পতি ব্রিটিশ রাজপরিবারের বিরুদ্ধে বর্ণবাদের গুরুতর অভিযোগ তোলেন।

মেগান জানান, তাঁর ছেলে আর্চির গায়ের রং কত কালো হতে পারে থেকে শুরু করে তিনি বন্ধুদের সঙ্গে কতবার মধ্যাহ্নভোজে গেছেন—সবকিছুতে নাক গলাত প্যালেস।
এমন অভিযোগের পাশাপাশি এ সাক্ষাৎকারে কয়েক শ বছরের পুরোনো ব্রিটিশ রাজপরিবার সম্পর্কে অনেক অজানা ও অপ্রিয় কথা শুনিয়েছেন হ্যারি–মেগান দম্পতি। ডাচেস অব সাসেক্স মেগান জানিয়েছেন, প্রাসাদে তাঁর তিক্ত অভিজ্ঞতার গল্প। হতাশা, নিঃসঙ্গতা, আত্মহত্যার ইচ্ছা ও রাজপরিবারের অসহযোগিতার কাহিনি। জানান, যুক্তরাজ্য ছেড়ে মার্কিন মুলুকে পাকাপাকিভাবে থিতু হওয়ার পেছনের কারণ।
তবে অপরাহ্ উইনফ্রে পরবর্তী সময়ে বলেন, মেগানের অনাগত সন্তানের গায়ের রং নিয়ে বর্ণবাদী মন্তব্য প্রিন্স ফিলিপ কিংবা রানি এলিজাবেথ—কারও নয় বলে তাঁকে জানিয়েছেন হ্যারি।

যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি যুক্তরাজ্যে এ সাক্ষাৎকার প্রচারের পর বিতর্কের ঝড় ওঠে। প্রতিক্রিয়া জানান রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। তাঁর পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বাকিংহাম প্যালেস জানায়, ‘যে বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়েছে, বিশেষ করে বর্ণবাদের বিষয়টি উদ্বেগজনক। এগুলো অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়া হয়েছে। পারিবারিকভাবেই বিষয়গুলো সুরাহা করা হবে।’

default-image

এদিকে সাক্ষাৎকার প্রচারের পর হ্যারি–মেগানের সঙ্গে কথা হয়েছে কি না, সেই বিষয়ে গতকাল প্রিন্স ইউলিয়ামের কাছে জানতে চান একজন সাংবাদিক। এ সময় উইলিয়াম বলেন, ‘না, আমার তাঁর (হ্যারি) সঙ্গে কথা হয়নি। তবে আমি কথা বলব।’

বিজ্ঞাপন
ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন