রাশিয়ান কমান্ডাররা চলমান যুদ্ধে আরও নিয়ন্ত্রণ এবং আরও প্রেরণা পেতে অগ্রসর হচ্ছেন। কয়েক জায়গায় তাঁদের ব্যাপক প্রতিরোধের মুখে পড়তে হচ্ছে। এই কমান্ডাররা যুদ্ধক্ষেত্রে তাঁদের নিজস্ব ব্যক্তিত্বকে চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছেন। এটি তাঁদের আরও ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছে বলে মনে করা হচ্ছে।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ভোরে ইউক্রেনে হামলা শুরুর নির্দেশ দেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। রুশ সেনারা প্রথম দিনই ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের উপকণ্ঠে পৌঁছে যান।

হামলা শুরুর পর রাশিয়ার ৯ হাজার সেনা নিহত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি। এ ছাড়া রুশ বাহিনীর ২১৭টি ট্যাংক, ৯০টি কামান, ৩১টি হেলিকপ্টার এবং ৩০টি জঙ্গি বিমান ও অন্যান্য এয়ারক্রাফট ধ্বংস করার দাবি করেছে ইউক্রেনের সেনাবাহিনী। অন্যদিকে ইউক্রেনের ২ হাজার ৮৭০ জন সেনা ও ‘জাতীয়তাবাদীকে’ হত্যার দাবি করেছে রাশিয়া। যুদ্ধে তাদের ৪৯৮ সেনা নিহত হওয়ার কথাও স্বীকার করেছে দেশটি। এদিকে কিয়েভসহ দেশটির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে লড়াইয়ে আহত রুশ সেনাদের বেলারুশের ইউক্রেন সীমান্তবর্তী এলাকার হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন