দিমিত্রো অরলভ একটি অনলাইন পোস্টে বলেছেন স্থানীয় বাহিনী এবং রাশিয়ান সেনাদের মধ্যে তীব্র লড়াই হয়েছে। সংঘর্ষে হতাহতের ঘটনাও ঘটেছে বলে জানিয়েছেন দিমিত্রো অরলভ।

এর আগে ইউক্রেনীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, রাশিয়ান সেনার বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি দখলে জোর চেষ্টা চালিয়েছে। এজন্য রুশ বাহিনী ট্যাঙ্ক নিয়ে শহরে প্রবেশ করে।

একটি টিভি চ্যানেলে দেওয়া সাক্ষাৎকারে অরলভ বলেছেন, ইউরোপের বৃহত্তম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভবন এবং ইউনিটগুলোতে ক্রমাগত শত্রুর গোলার কারণে আগুন লেগে যায়। এ ঘটনায় বৈশ্বিক নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়বে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি।

আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের জোর তৎপরতা চালাতে দেখা গেছে।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন