ইউক্রেনে রুশ বাহিনী লড়াই করছে। বিভিন্ন স্থানে এই বাহিনীকে প্রতিরোধের মুখেও পড়তে হচ্ছে। ইউক্রেনে সেনাদের লড়াইয়ের প্রশংসা করে পুতিন বলেন, তিনি তাঁদের কর্মকাণ্ডে গর্বিত। তিনি বিশেষ সামরিক অভিযানে সত্যিকারের বীরের মতো সাহস, পেশাদারির সঙ্গে কাজ চালিয়ে যাওয়ার জন্য রুশ সেনাদের প্রশংসা করেন। ইউক্রেনে হামলা ঘিরে পশ্চিমা দেশগুলোর নিষেধাজ্ঞা প্রসঙ্গে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট বলেন, এসব নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ওঠা যাবে। সেনাবাহিনীকে শক্তিশালী করার বিষয়ে পুতিন আরও বলেন, ‘কোনো সন্দেহ নেই যে আমরা আরও শক্তিশালী হয়ে উঠব।’

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রতিবেশী পশ্চিমপন্থী ইউক্রেন সরকারকে উৎখাত করতে হামলা শুরু করে রাশিয়া। একে রাশিয়া ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ হিসেবে অভিহিত করে। পশ্চিমা দেশগুলোর নজিরবিহীন নিষেধাজ্ঞার মুখে রাশিয়ার অর্থনীতি ঠিক পথে রয়েছে বলে বারবার দাবি করে আসছেন রুশ প্রেসিডেন্ট।

এদিকে লিথুয়ানিয়ার ভেতর দিয়ে রেলপথে কিছু পণ্য রুশ ভূখণ্ড কালিনিনগ্রাদে আসত। এটার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে বাল্টিক দেশ লিথুয়ানিয়া। এই পদক্ষেপের জন্য রাশিয়া দেশটিকে হুমকি দিয়ে বলেছে, এর জন্য ‘গুরুতর পরিণতি ভোগ’ করতে হবে। গতকাল রাশিয়ার নিরাপত্তা পরিষদের প্রধান নিকোলাই পাত্রুশেভ হুঁশিয়ারি দেন।

মস্কো বলছে, লিথুয়ানিয়ার এ সিদ্ধান্তের জবাবে রাশিয়া এমন ব্যবস্থা নেবে, যার ফলে ওই দেশের জনগণের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

কালিনিনগ্রাদে কিছু পণ্য পরিবহনের ওপর লিথুয়ানিয়ার নিষেধাজ্ঞা আরোপের সিদ্ধান্তের পরেই রাশিয়ার সঙ্গে দেশটির উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযানের প্রায় চার মাসের মাথায় ইউরোপের সঙ্গে রাশিয়ার নতুন এই উত্তেজনা তৈরি হলো।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন