বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শলৎজের দল এসপিডি গত রোববার নির্বাচনে ২৫ দশমিক ৭ শতাংশ ভোট পেয়েছে। অন্যদিকে ম্যার্কেলের মধ্য ডানপন্থী সিডিইউ পেয়েছে ২৪ দশমিক ১ শতাংশ ভোট।

দেশটির সরকারি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, নির্বাচনে জয়লাভ করায় চ্যান্সেলর গত সোমবার ওলাফ শলৎজকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। কনজারভেটিভ দলে ম্যার্কেলের উত্তরসূরি আরমিন ল্যাসেট অবশ্য এখনো শলৎজকে অভিনন্দন জানাননি।

কনজারভেটিভ জোটের সাত দশকের মধ্যে সবচেয়ে বাজে ফল করার পরও ল্যাসেট অন্য দলের সঙ্গে জোট গঠন করে ক্ষমতায় যেতে চাইছেন। কিন্তু তাঁর দলের মধ্যেই এখন অনেকে তাঁর থেকে দূরে সরে যাচ্ছেন। ফলে তাঁর ভবিষ্যৎ নিয়ে সন্দেহ তৈরি হচ্ছে। গত মঙ্গলবার ল্যাসেটের সিডিইউ দলের সঙ্গে জোটে থাকা সিডিইউ-সিএসইউর নেতা মার্কাস সোয়েদার শলৎজকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

সোয়েদার বলেন, এ মুহূর্তে শলৎজের চ্যান্সেলর হওয়ার ভালো সুযোগ রয়েছে। তিনি নির্বাচনের ফল মেনে নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, এটাই গণতন্ত্রের মূল নীতি।

১৬ বছর ক্ষমতায় থাকার পর চ্যান্সেলর পদ থেকে সরে যাচ্ছেন ম্যার্কেল। কিন্তু নতুন সরকার গঠন না হওয়া পর্যন্ত দায়িত্ব চালিয়ে যাবেন তিনি। এখন এসপিডি বা সিডিইউ-সিএসইউ জোট বাঁধতে চাইছে না। এখন সবার লক্ষ্য গ্রিন পার্টি বা এফডিপিকে জোটে টানা।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন