default-image

আলেক্সান্ডার লুকাশেঙ্কো (৬৬) ষষ্ঠ দফায় বেলারুশের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন। কোনো পূর্বঘোষণা ছাড়াই রাজধানী মিনস্কে তাঁর অভিষেক অনুষ্ঠান হয় বলে জানা গেছে।

সিএনএনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত মাসের বিতর্কিত সাধারণ নির্বাচনে নিজেকে বিপুল ব্যবধানে বিজয়ী বলে দাবি করে আসছিলেন লুকাশেঙ্কো। কিন্তু বিরোধীরা বলছেন, এখানে পুকুরচুরি হয়েছে। সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর ১৯৯৪ সাল থেকে দেশটির প্রেসিডেন্ট হিসেবে আছেন লুকাশেঙ্কো।

বিরোধী পক্ষ লুকাশেঙ্কোর এই শপথ অনুষ্ঠানকে ‘চোরদের বৈঠক’ হিসেবে অভিহিত করেছে। লিথুয়ানিয়ায় নির্বাসিত অবস্থায় থাকা বিরোধী নেতা স্ভেতলানা টিখানোভসকিয়া বলেন, এটি একটি তথাকথিত শপথ অনুষ্ঠান। এটি অবশ্যই প্রহসন।

বিজ্ঞাপন

লুকাশেঙ্কো যতই নিজেকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে আইনগত বৈধতা দেওয়ার চেষ্টা করুন না কেন, জনগণ তাঁকে আর নতুন কোনো সুযোগ দেবে না।

default-image

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, বেলারুশে প্রেসিডেন্টের অভিষেক অনুষ্ঠান সাধারণত ঘটা করে উদ্‌যাপন করা হয়। অনুষ্ঠান ঘিরে শহরজুড়ে থাকে নানান প্রস্তুতি। অনুষ্ঠানে গণমাধ্যমকর্মী, বিরোধীদলীয় নেতারাও উপস্থিত থাকেন। কিন্তু এবারের অনুষ্ঠান হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ও গোপনীয়তার মধ্যে। অনুষ্ঠানের আগে পুরো মিনস্কের রাস্তাঘাট বন্ধ করে দেওয়া হয়।

গত মাসে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর থেকে বেলারুশের রাজনৈতিক অঙ্গন উত্তপ্ত হয়ে আছে। দেশব্যাপী লুকাশেঙ্কোবিরোধী বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। বিক্ষোভ থেকে কয়েক শ বিরোধী নেতা-কর্মীকে আটক করা হয়েছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে বিরোধী নেতাদেরও।

মন্তব্য পড়ুন 0