তীব্র সমালোচনার মুখে অবশেষে পদত্যাগ করতে বাধ্য হলেন জার্মানির ইসলামবিদ্বেষী পেগিডা আন্দোলনের প্রধান উদ্যোক্তা লুটস বাখন্যান। তিনি গত বুধবার রাতে পদত্যাগ করেছেন। ওই রাতেই জনসাধারণের প্রতি ঘৃণা ছড়ানোর অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন ড্রেসডেন শহরের সরকারি কৌঁসুলি।
চলতি সপ্তাহে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে তিনি নাৎসি নেতা অ্যাডলফ হিটলারের অনুকরণে সেলফি তুলে প্রকাশ এবং জার্মানিতে আগমনরত শরণার্থীদের ‘পশুর দল ও আবর্জনার স্তূপ’ বলে মন্তব্য করেন লুটস বাখন্যান। তাঁর ওই প্রকাশিত ছবি ও মন্তব্য জার্মানির বেশ কিছু পত্রিকায় প্রকাশিত হওয়ার পর থেকেই তাঁর বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় বইছিল। নিজেকে বাঁচাতে তিনি হিটলার-সদৃশ্য সেলফিকে ‘নিছক মজা’ বলে দাবি করেন। কিন্তু তাঁর এ কথা কেউ বিশ্বাস করেনি।
জার্মানিতে হিটলারের ছবি ও তাঁর মন্তব্য এবং নাৎসি দলের লোগো প্রকাশ নিষিদ্ধ। এ ছাড়া ধর্ম, গোষ্ঠী বা বর্ণবাদবিরোধী বক্তব্যকেও জনসাধারণের প্রতি ঘৃণা ছড়ানো অপরাধ বলে বিবেচিত হয়।
জার্মান সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক দলের সভাপতি ও ভাইস চ্যান্সেলর জিগমার গাব্রিয়েল পেগিডা আন্দোলনের প্রধান উদ্যোক্তা লুটস বাখন্যানকে একজন ‘বুদ্ধিহীন নাৎসি’ বলে অভিহিত করেছেন। জার্মান পরিবেশবাদী সবুজ দল ও বাম দলও ইসলামবিরোধী এই আন্দোলনকে ধর্ম ও বর্ণবাদী আন্দোলন বলে অভিযুক্ত করেছে।
গত অক্টোবর থেকে জার্মানির পূর্বাঞ্চলের শহর ড্রেসডেনে প্রতি সোমবার প্রাশ্চাত্যে ইসলামীকরণের বিরুদ্ধে পেগিডা আন্দোলনের সমর্থনে মিছিল ও জমায়েত অনুষ্ঠিত হচ্ছিল।

বিজ্ঞাপন
ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন