default-image

জার্মানিতে চিকিৎসাধীন রাশিয়ার বিরোধীদলীয় নেতা অ্যালেক্সেই নাভালনি (৪৪) হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন। আজ বুধবার বার্লিনের দ্য চ্যারিটি হাসপাতালের চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন তাঁর অবস্থার যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, নাভালনি দ্য চ্যারিটি হাসপাতালে মোট ৩২ দিন চিকিৎসাধীন ছিলেন। এর মধ্যে ২৪ দিনই ছিলেন নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ)। গত ২০ আগস্ট রাশিয়ার সাইবেরিয়ায় নাভালনির শরীরে বিষাক্ত নার্ভ এজেন্ট নভিচোক প্রয়োগ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ক্রেমলিন অস্বীকার করলেও ইতিমধ্যে জার্মান, ফ্রান্স ও সুইডেনে নমুনা পরীক্ষায় এই অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে।

নাভালনির স্বাস্থ্যের অগ্রগতির বিষয়ে বার্লিনের দ্য চ্যারিটি হাসপাতাল জানিয়েছে, বর্তমান শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় চিকিৎসকেরা বিশ্বাস করছেন নাভালনি পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠবেন। তবে এই বিষ শরীরে দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব সৃষ্টি করতে পারে।

বিজ্ঞাপন

এর আগে গত শনিবার ইনস্টাগ্রামে নিজের একটি ছবি পোস্ট করেন নাভালনি। ছবিতে তাঁকে কারও সাহায্য ছাড়া সিঁড়িতে নামার ভঙ্গিতে দাঁড়ানো দেখা যায়। ওই পোস্টে নাভালনি বলেন, তাঁর হাত ফোন ব্যবহারে ও পানি ঢালতে ব্যর্থ হচ্ছে। পা কাঁপার কারণে সিঁড়ি বাইতে অসুবিধা হচ্ছে।

অসুস্থ হয়ে পড়ার সময় নাভালনি যে পোশাক পরে ছিলেন, তা তিনি রাশিয়ার কাছে ফেরত চেয়েছেন। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের এই সমালোচক গত সোমবার মস্কোর প্রতি এ আহ্বান জানান। নাভালনি অভিযোগ করেছেন, নার্ভ এজেন্ট প্রয়োগের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য লুকাচ্ছে মস্কো।

বিজ্ঞাপন

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ২০ আগস্ট সাইবেরিয়ার টমসক শহর থেকে মস্কোর উদ্দেশে উড্ডয়ন করেছিলেন নাভালনি। এরপরই উড়োজাহাজে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাঁকে অচেতন অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়া হয়। এর কয়েক দিনের মাথায় রাশিয়ার চিকিৎসকদের বাধা উপেক্ষা করে চিকিৎসার জন্য তাঁকে জার্মানি নেওয়া হয়। রাশিয়ার চিকিৎসকদের ওই বাধা রাজনৈতিক বলে অভিহিত করেছিলেন নাভালনির স্ত্রী।

মন্তব্য পড়ুন 0