পুতিন বলেন, ‘পূর্বসূরিদের মতোই আজ আমাদের সেনারা নাৎসিদের কলুষতা থেকে তাঁদের মাতৃভূমিকে মুক্ত করার জন্য এই আত্মবিশ্বাস নিয়ে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করছে যে ১৯৪৫ সালের মতো জয় আমাদেরই হবে।’

পুতিন বলেন, ‘আজ নাৎসিবাদের পুনর্জন্ম ঠেকানো আমাদের সবার সাধারণ দায়িত্ব। কারণ, এই নাৎসিবাদের কারণেই বিভিন্ন দেশের জনগণকে চরম ভোগান্তি স্বীকার করতে হয়েছে।’

পুতিন আরও বলেন, তাঁর আশা, নতুন প্রজন্ম তাদের পিতা ও পিতামহের যুদ্ধজয়ের সেই স্মৃতি ধরে রাখার যোগ্য হয়েছে।

ইউক্রেন ফ্যাসিবাদের কবলে পড়েছে বলে অভিযোগ করছেন পুতিন। এই ফ্যাসিবাদ ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের সংখ্যালঘু রুশভাষী মানুষ ও রাশিয়ার জন্য হুমকি হয়ে উঠেছে বলেও অভিযোগ পুতিনের। নব্য নাৎসিদের হাত থেকে ইউক্রেনকে মুক্ত করার প্রত্যয়ের কথা জানিয়ে আসছে মস্কো।

পুতিন বলেন, দুঃখজনকভাবে আজ আবারও নাৎসিবাদ মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে।
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকে মহান দেশপ্রেমের যুদ্ধ মনে করে মস্কো। পুতিন বলেন, ‘দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে যারা পরাজিত হয়েছিল, তাদের মতাদর্শিক উত্তরসূরিদের লাগাম টেনে ধরা আমাদের পবিত্র দায়িত্ব।’

রুশদের বদলা নেওয়ারও আহ্বান জানান পুতিন। রুশ প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, ইউক্রেনের বাসিন্দাদের একটি শান্তিপূর্ণ ভবিষ্যৎ কামনা করেন তিনি।

আজ সোমবার বড় সামরিক কুচকাওয়াজের মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নাৎসি জার্মানির বিপক্ষে জয়ের বার্ষিকী আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্‌যাপন করবে মস্কো।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন