বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিষয়টি নিয়ে সতর্ক করে মাখোঁ জানান, আগামী ১৫ ডিসেম্বর থেকে ৬৫ বছরের বেশি বয়সী ব্যক্তিদের হেলথ পাসের মেয়াদ বাড়াতে বুস্টার ডোজের নেওয়ার প্রমাণ দেখাতে হবে।

চলতি বছরের আগস্ট থেকে ফ্রান্সের অনেক বাসিন্দার জন্য হেলথ পাস জীবনের অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। দেশটিতে নানা স্থানে ঢুকতে প্রয়োজন পড়ে হেলথ পাসের। করোনার টিকার পূর্ণ ডোজ নেওয়া থাকলেই মেলে এই পাস।

ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে জার্মানি ও যুক্তরাজ্যে গত সপ্তাহজুড়ে করোনা সংক্রমণের হার ৪০ শতাংশের ওপরে। সেদিক দিয়ে ফ্রান্সের অবস্থান বেশ ভালো বলে উল্লেখ করেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট। তিনি বলেন, মহামারি এখনো শেষ হয়ে যায়নি।
মাখোঁ বলেন, বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা থেকে দেখা গেছে, টিকা নেওয়ার ছয় মাস পর থেকে শরীরে করোনার বিরুদ্ধে সুরক্ষাব্যবস্থা কমে আসে।

এর জের ধরে সংক্রমণের পর জটিলতা বাড়ার ঝুঁকি থাকে। এর সমাধান হচ্ছে টিকার অতিরিক্ত একটি ডোজ দেওয়া।

দেখা গেছে, করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর যাঁরা নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভর্তি আছেন, তাঁদের মধ্যে ৮০ শতাংশের বেশি রোগীর বয়স পঞ্চাশোর্ধ্ব।

এদিকে বুস্টার ডোজ নিয়ে যখন ফ্রান্স তোড়জোড় করছে, তখন দেশটিতে টিকা নেননি টিকাদান কর্মসূচির আওতায় থাকা ৬০ লাখ মানুষ। তাঁদের টিকা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের করোনা–বিষয়ক হালনাগাদ তথ্য দিয়ে আসছে পরিসংখ্যান নিয়ে কাজ করা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস। সেখানে বলা হচ্ছে, মহামারি শুরুর পর থেকে ফ্রান্সে আক্রান্ত হয়েছেন ৭২ লাখ ৩২ হাজার ১৫৭ জন। আর ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ১৮ হাজার ২৩ জনের।

ইউরোপ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন