বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিজেপিশাসিত ত্রিপুরায় বারবার নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা-সহিংসতার অভিযোগ এনে তৃণমূল বিষয়টি রাজধানী নয়াদিল্লিতে নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। দলের সাংসদেরা এ নিয়ে কথা বলার জন্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সাক্ষাৎও চান।

ডেরেক ও’ব্রায়েন টুইট করে জানান, তৃণমূলের ১৬ জন সাংসদ রাজধানীতে পৌঁছেছেন। তাঁরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সঙ্গে আজ সকালে সাক্ষাৎ করতে চেয়েছিলেন।

তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ তৃণমূল সাংসদদের সাক্ষাতের জন্য সময় দেননি। এর জেরে তৃণমূলের সাংসদেরা নয়াদিল্লিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর দপ্তরের সামনে ধরনায় বসেন।

পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল যুব কংগ্রেসের নেত্রী ও অভিনেত্রী সায়নী ঘোষকে গতকাল রোববার গ্রেপ্তার করে ত্রিপুরা পুলিশ। তাঁর বিরুদ্ধে গাড়ি ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ আনা হয়।

তৃণমূলের দাবি, ত্রিপুরার আগরতলায় নির্বাচনী সভা পণ্ড করতে পরিকল্পিতভাবে সায়নীকে ফাঁসানো হয়েছে।

তৃণমূল নেতাদের অভিযোগ, গত শনিবার মধ্যরাত থেকে তাঁদের হোটেল ঘিরে রাখে পুলিশ। গতকাল বেলা ১১টার দিকে পুলিশ হোটেলে ঢুকে সায়নীর খোঁজ করে। পরে তারা সায়নীকে জোর করে থানায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। সেখানে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূলের রাজ্য সম্পাদক কুনাল ঘোষ। তিনি পুলিশ কর্মকর্তার কাছে জানতে চান, সায়নীকে থানায় নিয়ে যাওয়ার কোনো নোটিশ আছে কি না। তৃণমূলের দাবি, পুলিশ কোনো নোটিশ দেখাতে পারেনি। কিন্তু পুলিশ জানায়, সায়নীর বিরুদ্ধে ‘হিট অ্যান্ড রান’-এর অভিযোগ আছে। এরপর সায়নীকে আগরতলা থানায় নেওয়া হয়। সায়নীসহ অন্য তৃণমূল নেত্রীরা থানায় পৌঁছানোর পর হেলমেট পরা একদল দুষ্কৃতকারী লাঠি নিয়ে থানা চত্বরে হাজির হয়। তারা থানায় ঢুকে তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা করে বলে অভিযোগ দলটির।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন