অমিত শাহের দায়িত্ব কমাল বিজেপি, নতুন সভাপতি জেপি নাড্ডা

বিজ্ঞাপন
default-image

প্রায় সাত মাস ধরে অমিত শাহের সঙ্গে মিলে ভারতের ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সভাপতির দায়িত্ব সামলে আসছিলেন জেপি নাড্ডা। তবে এখন থেকে আর যুগ্মভাবে নয়, এককভাবেই এই দায়িত্ব পালন করবেন নাড্ডা। আজ সোমবার বিজেপির নতুন সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, একমাত্র প্রার্থী হওয়ায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজেপির সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন জেপি নাড্ডা। দলের সংসদীয় বোর্ড সদস্য অমিত শাহ, রাজনাথ সিং, নিতিন গড়করি এবং সাবেক প্রধানেরা তাঁর নাম প্রস্তাব করেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের পর বিজেপিতে তৃতীয় প্রভাবশালী নেতা হিসেবে ধরা হয় নাড্ডাকে।

সরকারি দায়িত্ব যাতে আরও ভালোভাবে পালন করতে পারেন, সে কারণে অমিত শাহ নিজেই সভাপতির পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে লিখিত অনুরোধ জানান।

বিদায়ী সভাপতি অমিত শাহের প্রশংসায় কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী ও বিজেপির সাবেক সভাপতি রাজনাথ সিং বলেছেন, ‘বিজেপি প্রধান হিসেবে অমিত শাহ ছিলেন অতুলনীয়। দলকে তিনি নতুন উচ্চতায় নিয়ে গেছেন।’

মোদি-অমিত শাহ জুটির আস্থাভাজন হিসেবে পরিচিত জেপি নাড্ডার প্রধান চ্যালেঞ্জ হবে নির্বাচনে বিজেপির আধিপত্য বজায় রাখা। অমিত শাহের মেয়াদেই ২০১৪ ও ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে জিতে ক্ষমতায় এসেছে বিজেপি। তবে গত বছর মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশ, ছত্তিশগড় ও রাজস্থানের মতো রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনে হারের মুখ দেখেছে বিজেপি। আসন্ন দিল্লি ও বিহারের নির্বাচন তাই নাড্ডার জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা দিতে পারে। পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির আধিপত্য বাড়ানোও তাঁর আরেকটি বড় চ্যালেঞ্জ।

নাড্ডার সমালোচকেরা বলছেন, একক সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হলেও নাড্ডা আদতে অমিত শাহের ছায়ায় থেকেই কাজ করবেন। জবাবে কংগ্রেসকে খোঁচা দিয়ে বিজেপি বলেছে, একটি বিশেষ দল নেতৃত্বের ব্যাপারে পরিবারতন্ত্রের বাইরে অন্য কিছু ভাবতে পারে না জন্যই এমন মন্তব্য করেছে।

হিমাচল প্রদেশ থেকে তিনবার এমএলএ নির্বাচিত হওয়া বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ জেপি নাড্ডা ১৯৯৮ সালে প্রথমবারের মতো মন্ত্রিত্ব পান। বর্তমান সরকারে তিনি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে আছেন। ২০১৯ সালের জুনে অমিত শাহের পাশাপাশি তাঁকেও বিজেপি সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন