default-image

বিতর্কিত হিন্দুত্ববাদী নেতা যোগী আদিত্যনাথ আজ রোববার ভারতের সবচেয়ে বড় রাজ্য উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন। রাজ্যের রাজধানী লক্ষ্ণৌতে তিনি শপথ নেন। পাঁচবার নির্বাচিত আদিত্যনাথ ওই রাজ্যের ৩২তম মুখ্যমন্ত্রী হলেন। বিতর্কিত মন্তব্য ও নানান কর্মকাণ্ডের কারণে আদিত্যনাথের বিরুদ্ধে সমালোচনার অন্ত নেই।
রাজনৈতিক জীবনের শুরু থেকেই বিতর্কিত মন্তব্য করে আসছেন তিনি। বলিউড কিং শাহরুখ খান থেকে শুরু করে মুসলিমদের নিয়েও তিনি তির্যক নানান মন্তব্য করেন। মুসলিমপ্রধান ছয় দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ নিষিদ্ধ করে ডোনাল্ড ট্রাম্পের আদেশের প্রশংসা করে আদিত্যনাথ বলেন, সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় ভারতেরও উচিত এমন পদক্ষেপ নেওয়া। কট্টরবাদী এই নেতা মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার আগে কী কী মন্তব্য করেছিলেন দেখা যাক—
*উত্তর প্রদেশে ২০০৫ সালে বলেছিলেন, ‘যতক্ষণ না ভারত হিন্দুরাষ্ট্র হচ্ছে ততক্ষণ আমি থামব না।’
* ২০১৫ সালে উত্তর প্রদেশের কইরানা এলাকা থেকে কিছু হিন্দু পরিবারকে উৎখাতের খবর গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়। এর পরে যোগী আদিত্যনাথ বলেন, ‘যোগী আগামীকালের কথা বলছে না। যোগী ভবিষ্যতের কথা বলছে। হিন্দু পরিবারের উৎখাত আমাদের জন্য বিপজ্জনক হতে চলেছে। উত্তর প্রদেশের পশ্চিমাঞ্চলকে আর একটা কাশ্মীর হতে দেবে না বিজেপি।’ 


* ২০১৫ সালে আদমশুমারির তথ্য প্রকাশিত হওয়ার পরে আদিত্যনাথ বলেন, ‘মুসলিমদের জন্যই গণতন্ত্রের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে।’

* ২০০৪ সালে ৩১ আগস্ট একটি টেলিভিশন অনুষ্ঠানে সংখ্যালঘুদের উদ্দেশে উত্তর প্রদেশের নতুন মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, আমরা আপনাদের (সংখ্যালঘু) কাউকে খুন করতে দেব না। এখানে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করুন এবং দেশের উন্নতিতে মনোযোগ দিন।...যদি অন্যদিকে শান্তি না থাকে, তাহলে আমরা তাদের শেখাব কীভাবে শান্তিতে থাকতে হয়...তারা যে ভাষা বোঝে সে ভাষায়।

* অসহিষ্ণুতা নিয়ে মন্তব্য করায় তাঁর রোষানলে পড়েন বলিউড অভিনেতা শাহরুখ খান। ২০১৫ সালে ৪ নভেম্বর তিনি বলেছিলেন, ‘শাহরুখ খানের মনে রাখা উচিত যে মানুষ যদি তাঁর ছবি বয়কট করে, তবে রাস্তায় ঘুরে বেড়ানো অপর মুসলমানদের সঙ্গে তাঁর কোনো পার্থক্য থাকবে না। আমি মনে করি, শাহরুখ খান এবং পাকিস্তানের সন্ত্রাসী হাফিজ সাঈদের কথার বলার মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই।’

* যদি একজন হিন্দু নারী ধর্মান্তরিত হয়ে মুসলিম হয়, তবে আমরা ১০০ মুসলিম নারীকে ধর্মান্তরিত করব...যেভাবে হিন্দু মেয়েদের অসম্মান করা হয়, আমি মনে করি তা সভ্য সমাজ গ্রহণ করবে না। যদি সরকার এ ক্ষেত্রে কোনো পদক্ষেপ না নেয়, তাহলে হিন্দুরা নিজে পদক্ষেপ নেবে। উত্তর প্রদেশের আজমগড়ে একটি ভিডিও বার্তায় তিনি এসব কথা বলেন।

* যোগী আদিত্যনাথ বলেন, ভারতের কোনো রাজ্যে যদি হিন্দুরা নাজেহালের শিকার হয়, তাহলে আমরা তা মেনে নেব না। যদি কেউ আমাদের ছুতে চেষ্টা করেন, তবে এর ফল ভোগ করতে হবে।

* ২০১৫ সালে বারানসির একটি অনুষ্ঠানে আদিত্যনাথ বলেছিলেন, ‘যারা সূর্য নমস্কার করে না, তাদের দেশ ছেড়ে চলে যাওয়া উচিত কিংবা সমুদ্রে ডুবিয়ে মারা উচিত। আর তা না হলে বাকি জীবনটা তাদের অন্ধকার ঘরে বন্দী করে রাখা উচিত।’

* শুধু মুসলিমদের নিয়ে নয়, খ্রিষ্টান ও শান্তিতে নোবেল জয়ী মাদার তেরেসাকেও ছাড়েননি যোগী। তেরেসা সম্পর্কে ২০১৬ সালে ১৬ জুলাই উত্তর প্রদেশে এক জনসভায় তিনি বলেছিলেন, ‘ভারতীয়দের খ্রিষ্টান করার পেছনে মাদার তেরেসার ষড়যন্ত্র রয়েছে। ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে সেবা করার নামে হিন্দুরা তাই ধর্ম পরিবর্তন করে নিচ্ছে।’

* চলতি বছরের মার্চে উত্তর প্রদেশে নির্বাচনী প্রচারে আদিত্যনাথ যোগী বলেছিলেন, ‘সমাজবাদী পার্টি ক্ষমতায় এলে শুধু কবরস্থানের উন্নতি হবে। আর বিজেপি ক্ষমতায় এলে অনেক বেশি রামমন্দির হবে।’

তথ্যসূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন