এর মধ্যে গতকাল দিবাগত রাত ১২টা থেকে আজ সকাল ৮টা পর্যন্ত ১১টি ভূমিকম্প হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। আজ ভোর পৌনে পাঁচটায় একটি ভূকম্পন অনুভূত হয়। এর মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ৫।

গতকাল দিবাগত রাত ৩টার দিকে পোর্ট ব্লেয়ার থেকে ২৪৪ কিলোমিটার দূরে ৪ দশমিক ৪ মাত্রার একটি ভূমিকম্প হয়। রাত সোয়া ২টার দিকে ক্যাম্পবেল উপসাগর থেকে ২৫১ কিলোমিটার দূরে ৪ দশমিক ৪ মাত্রার আরেকটি ভূমিকম্প হয়। একই মাত্রার আরেকটি ভূমিকম্প হয় পৌনে দুইটার দিকে। রাত দেড়টায় ক্যাম্পবেল উপসাগর থেকে ২৬২ কিলোমিটার দূরে ৪ দশমিক ৫ মাত্রার আরেকটি ভূমিকম্প হয়েছে।

রাত একটায় ৪ দশমিক ৫ মাত্রার একটি ভূমিকম্প হয়। ভূমিকম্পটি হয় পোর্ট ব্লেয়ার থেকে ২৫৮ কিলোমিটার দূরে। পৌনে ১টায় পোর্ট ব্লেয়ার থেকে ১৯৯ কিলোমিটার দূরে আরেকটি ভূমিকম্প হয়। রাত ১২টার দিকে পোর্ট ব্লেয়ার থেকে ২১৮ কিলোমিটার দূরে একটি ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৪ দশমিক ৬।

গত কয়েক দিন কর্ণাটক রাজ্যে একাধিক ছোট ছোট ঘটনা ও ভূকম্পনের ঘটনার পর আন্দামানে এসব ভূমিকম্প হলো। গত শনিবার দুপুরে কর্ণাটকের বিজয়নগরের কাছে ২ দশমিক ১ মাত্রার ভূমিকম্প হয়েছিল। এ ভূমিকম্পের ৪ মিনিট আগে দক্ষিণা কান্নাডায় হওয়া আরেকটি ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ২ দশমিক ২।

কর্ণাটকের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের কমিশনার মনোজ রজন বলেন, ‘এ ধরনের ভূমিকম্প স্থানীয় বাসিন্দাদের কোনো ক্ষতি করে না। সামান্য ভূকম্পন হয়তো অনুভূত হয়। সবকিছু সামান্য নড়েচড়ে। এ ছাড়া এসব ভূমিকম্পের বড় ধরনের ভূমিকম্প হয়ে ওঠার ঝুঁকি কম। এ ছাড়া ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কাও কম।’

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন