বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দ্য হিন্দুর খবরে বলা হয়েছে, গতকাল রোববার উত্তর প্রদেশের বুলন্দশহরে যান প্রিয়াঙ্কা। এ সিদ্ধান্ত জানিয়ে প্রিয়াঙ্কা বলেন, ‘কংগ্রেসকে যদি জিততে হয়, তাহলে একাই জিততে হবে। দলের অনেক কর্মী আমাকে অনুরোধ করেছেন কোনো দলের সঙ্গে যেন জোট না করি। আমি আপনাদের আশ্বস্ত করতে চাই, আমরা সব আসনে একাই লড়ব।’ প্রিয়াঙ্কা এদিন জানান, যোগীরাজ্যের সব আসনে তাঁর দল শুধু কংগ্রেসের কর্মীদেরই টিকিট দেবে। অন্য দল থেকে আসা নেতারা হাতের (মার্কা) টিকিট পাবেন না। তিনি এবারের নির্বাচনকে ‘জীবন-মরণ’ অবস্থা বলে মন্তব্য করেছেন।

default-image

উত্তর প্রদেশের রাজনীতি যাঁরা লক্ষ রাখেন, তাঁদের ভাষ্য, সম্প্রতি লাখিমপুরের ঘটনার পর উত্তর প্রদেশে কংগ্রেসের পালে সামান্য হলেও হাওয়া লেগেছে। এ ছাড়া দীর্ঘদিন ধরে প্রিয়াঙ্কা নিজে দলকে সাংগঠনিকভাবে সাজানোর কাজ করছেন। এতে অনেক ভোটবৃদ্ধির আশা করছে দলটি। তা ছাড়া প্রিয়াঙ্কার ৪০ শতাংশ আসনে নারী প্রার্থী দেওয়ার ঘোষণাও চমক জাগিয়েছে। তাই ২০২৪ সালে লোকসভা নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে এখনই সংগঠন ঢেলে সাজাতে চান প্রিয়াঙ্কা।

এর আগে অবশ্য প্রিয়াঙ্কা গান্ধী নিজেই বলেছিলেন, উত্তর প্রদেশ বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপিবিরোধী অন্য দলের সঙ্গে জোট করতে আপত্তি নেই কংগ্রেসের। সে সময় বলেছিলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য বিজেপিকে হারানো। কিন্তু আমরা নিজেদের দলের স্বার্থ আগে দেখব। যে দলের সঙ্গে জোট নিয়ে আলোচনা হবে, তাদেরও আমাদের মতো খোলা মনের হতে হবে।’

default-image

কংগ্রেস চাইছিল ২০১৭ সালের মতো সাবেক মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদবের সমাজবাদী পার্টির সঙ্গে জোট করতে। কিন্তু অখিলেশ আগে একতরফাভাবে ঘোষণা দিয়েছেন, তাঁর দল বড় কোনো দলের সঙ্গে জোট করবে না। আগের নির্বাচনের জোট করে লাভ তেমন হয়নি। স্থানীয় সূত্রের খবর, উত্তর প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব সমাজবাদী পার্টির সঙ্গে জোট নিয়ে আলোচনা করলেও তেমন সুবিধা করে উঠতে পারেনি। কংগ্রেসকে সেভাবে গুরুত্ব দিতে চাননি সপা সুপ্রিমো। সম্ভবত, এ কারণেই অবস্থান বদলে সব আসনে নিজেদের শক্তিশালী করার চেষ্টা করবে দল।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন