default-image

পশ্চিমবঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রিসভার প্রভাবশালী মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর তৃণমূল ছাড়ার ঘোষণায় উজ্জীবিত রাজ্য বিজেপি। দলটির দু-একজন সংসদ বলতে শুরু করেছেন, একুশের আগেই এই মমতা সরকারের পতন হবে।

বিজেপি কোমর বেঁধে নেমেছে রাজনৈতিক ময়দানে। শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগ দেননি। বিজেপির আশা, শুভেন্দু তাদের দলেই আসছেন। পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভার নির্বাচন আগামী বছরের এপ্রিল-মে মাসে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। ইতিমধ্যে কলকাতার সাবেক মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় যোগ দিয়েছেন বিজেপিতে।

বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, ইতিমধ্যে তাঁদের দলে ৩ জন সাংসদ ও ১০ জন বিরোধী দলের বিধায়ক যোগ দিয়েছেন। সর্বশেষ শুক্রবার মন্ত্রিত্ব ছেড়েছেন রাজ্যের পরিবহন ও সেচমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী এবং দক্ষিণ কোচবিহারের তৃণমূল বিধায়ক মিহির গোস্বামী। মিহির গোস্বামী অবশ্য শুক্রবারই যোগ দিয়েছেন বিজেপিতে।

বিজ্ঞাপন

বিজেপির দুই সাংসদ অর্জুন সিং ও নিশীথ প্রামাণিক গতকাল শনিবার বলেছেন, একুশের আগেই মমতা সরকারের পতন হবে। এই সরকার রাজ্যবিধান সভায় এক মাসের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারাবে। ভাঙন শুরু হয়েছে তৃণমূলে। শতাধিক তৃণমূল বিধায়ক আমাদের দলে যোগ দেওয়ার জন্য অপেক্ষা করছেন।

রাজ্য বিধানসভার ২৯৪ আসনের মধ্যে তৃণমূলের রয়েছে ২২১টি আসন।

দিলীপ ঘোষ বলেছেন, ‘এখন টালমাটাল হয়ে পড়েছে তৃণমূল। আগামী এক মাসের মধ্যেই উঠে যাবে দিদির দল। যে পার্টি ছেড়ে সাংসদ-বিধায়কেরা চলে যান, সেই পার্টির আর আছেটা কী?’

গতকাল উত্তর দিনাজপুর জেলার ইসলামপুরে তৃণমূল মন্ত্রিসভা থেকে শুভেন্দু অধিকারীর ঘনিষ্ঠ ৮ হাজার তৃণমূল সদস্য যোগ দিয়েছেন বিজেপিতে। খবর রটেছে, ১৫ জন বিধায়ক নিয়ে দিল্লিতে হাজির হচ্ছেন শুভেন্দু অধিকারী। যোগ দেবেন বিজেপিতে।

পশ্চিমবঙ্গের পৌরমন্ত্রী ও সাবেক মেয়র ফিরহাদ হাকিম বিজেপির উদ্দেশে বলেছেন, ‘ওরা দিবাস্বপ্ন দেখছে। সাধারণ মানুষের ভোটেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জিতে ফের সরকার গড়বে এই রাজ্যে।

মুখ্যমন্ত্রী হবেন তিনিই। রাজ্যের মানুষের পুরো আস্থা রয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ওপর। তৃণমূল বাংলায় ছিল, এখনো আছে, ভবিষ্যতে থাকবে।’

মন্তব্য করুন