default-image


ভারতে কৃষক বিল পাসের আগে থেকে বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ চলছিল। সেই বিক্ষোভের আঁচ আছড়ে পড়ল এবার রাজধানী দিল্লিতে। পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে পাঞ্জাবের এক দল কংগ্রেস কর্মী দিল্লির ইন্ডিয়া গেটের কাছে আজ সোমবার সকালে একটি ট্রাক্টরে আগুন লাগান। সেখান থেকে পাঁচ বিক্ষোভকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
পুলিশ জানিয়েছে, যে গাড়িতে চেপে তাঁরা দিল্লি এসেছিলেন, সেটাও আটক করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তিরা সবাই পাঞ্জাব যুব কংগ্রেসের সদস্য। যে ট্রাক্টরটিতে আগুন দেওয়া হয়েছে, সেটি ট্রাকে চাপিয়ে আনা হয়েছিল। বিক্ষোভের ঘটনা যুব কংগ্রেসের ফেসবুকে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়েছে।
পুলিশ বলেছে, আজ সকালে পাঞ্জাব যুব কংগ্রেসের প্রায় ২০ সদস্য দিল্লি গেটে জড়ো হন। এরপর ট্রাক্টরে আগুন ধরিয়ে তাঁরা নতুন কৃষি আইনের বিরোধিতা করে স্লোগান দেন। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর এক টুইট বার্তায় লিখেছেন, ট্রাকে করে ট্রাক্টর এনে আগুন লাগিয়ে কংগ্রেস নাটক করেছে। এ জন্যই দেশের মানুষ তাদের ভোট দেয়নি।

বিজ্ঞাপন

গত সপ্তাহে তিনটি কৃষি বিল পার্লামেন্টে পাস হয়। রাজ্যসভায় ওই বিল নিয়ে ধুন্ধুমার বাধে। আট সাংসদকে সাসপেন্ড করে সরাসরি ভোটের দাবি খারিজ করে সরকার ধ্বনি ভোটে বিলগুলো পাস করায়। গত রোববার রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ বিতর্কিত সেই বিলগুলোয় সম্মতি দেন। তার আগে থেকেই পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ, মহারাষ্ট্র ও কর্ণাটকের কৃষকেরা আন্দোলন শুরু করেন।

পাঞ্জাব কার্যত অচল। সেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং খাতকর কালান গ্রামে অবস্থান ধর্মঘট শুরু করেছেন। এ ছাড়া কৃষক বিলের বিরোধিতায় এনডিএ জোট ছেড়ে বেরিয়ে এসেছে বিজেপির সবচেয়ে পুরোনো শরিক অকালি দল। দলের সভাপতি সুখবীর সিং বাদল বলেন, এনডিএ নামেই জোট। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমলে জোট শরিকদের নিয়ে একটাও বৈঠক হয়নি। কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণের আগে জোট শরিকদের মতামতও জানতে চাওয়া হয়নি।

default-image
বিজ্ঞাপন

পাঞ্জাবে যাবেন রাহুল

নতুন কৃষি আইন নিয়ে কংগ্রেস রাজ্যে রাজ্যে আন্দোলনে নেমেছে। কৃষকের ক্ষোভকে হাতিয়ার করার চেষ্টা করছে দলটি। কংগ্রেস সূত্র বলেছে, আন্দোলনে শামিল হতে দলের নেতা রাহুল গান্ধী চলতি সপ্তাহেই পাঞ্জাব যাবেন। দলের অন্তর্বর্তী সভাপতি সোনিয়া গান্ধীর চিকিৎসা সঙ্গী হিসেবে প্রায় দুই সপ্তাহ বিদেশে কাটিয়ে সম্প্রতি তিনি দেশে ফিরেছেন। পার্লামেন্টের বর্ষাকালীন অধিবেশনে এক দিনের জন্যও তিনি হাজির ছিলেন না।


দলীয় সূত্র বলেছে, পাঞ্জাবে কৃষকদের বিক্ষোভ সমাবেশে ভাষণ দেবেন রাহুল। তিনি হরিয়ানাতেও যেতে আগ্রহী। প্রিয়াঙ্কা গান্ধী চাইছেন তাঁকে উত্তর প্রদেশে নিয়ে যেতে। যদিও কংগ্রেস নেতারা জানেন না, বিজেপি শাসিত রাজ্য সরকার রাহুলকে সেখানে রাজ্যে যাওয়ার অনুমতি দেবে কি না।
সরকারের সমালোচনা করে কৃষকদের উদ্দেশে রাহুল বলেন, প্রথমে নোটবন্দী। এরপর ভুলে ভরা জিএসটি। করোনাকালে কৃষকদের কাউকে একটা টাকাও দেওয়া হলো না। এখন তিনটি আইন করে সরকার কৃষকদের ক্রীতদাসে পরিণত করতে চাইছে, পুঁজিপতিদের হাতে তুলে দিতে চলেছে কৃষকদের ভাগ্য। রাহুল বলেন, কংগ্রেস কৃষকদের পাশে আছে।

মন্তব্য পড়ুন 0