default-image

ভারতে এখন ১১টি রাজ্যে করোনা ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে। ভারত সরকারের মাথাব্যথাও ওই ১১টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল নিয়ে। এরই মধ্যে আবার করোনা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে কলকাতাসহ গোটা পশ্চিমবঙ্গে।

দেশটির ২৮ রাজ্য ও ৯টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মধ্যে অন্তত ১১টিতে করোনা ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। এই ১১টি রাজ্য হলো মহারাষ্ট্র, পাঞ্জাব, কর্ণাটক, কেরালা, ছত্তিশগড়, চণ্ডীগড়, গুজরাট, মধ্যপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, দিল্লি ও হরিয়ানা।

পশ্চিমবঙ্গে গত ২৪ ঘণ্টায় কলকাতাসহ গোটা রাজ্যে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১ হাজার ৭৩৩ জন। অথচ গতকাল শুক্রবার এই সংখ্যা ছিল ১ হাজার ২৭৪ জন। গতকাল রাতে রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের সর্বশেষ বুলেটিনে বলা হয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৪ জন। মৃত ব্যক্তিদের সবার বাড়ি কলকাতা ও উত্তর ২৪ পরগনা জেলায়।

তবে সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৫৫০ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত এই রাজ্যে করোনায় সংক্রমিত হলেন ৫ লাখ ৮৯ হাজার ৯৯২ জন। আর মৃত্যু হলো ১০ হাজার ৩৩৫ জনের। এখন অবশ্য রাজ্যের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল ও নার্সিংহোমে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৭ হাজার ৬৯২ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় কলকাতায় সংক্রমিত হয়েছেন ৫১৩ জন। আর মৃত্যু হয়েছে ২ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় এই রাজ্যে করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ২৬ হাজার ৯৮৬ জনের। সব মিলিয়ে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৯২ লাখ ২৫ হাজার ৩৫১ জনের।

বিজ্ঞাপন

সর্বশেষ রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় কলকাতায় ৫১৩ জনের সঙ্গে উত্তর ২৪ পরগনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩৩১ জন। দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ১৭৩ জন, হাওড়ায় ১৫৯, বীরভূমে ১৫৮, পশ্চিম বর্ধমানে ৮২ ও হুগলিতে আক্রান্ত হয়েছে ৮০ জন।

প্রসঙ্গত চলতি বছরের ১ মার্চ এই রাজ্যে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা ছিল ১৯৮। ৪ মার্চ তা দাঁড়ায় ২০৯ জনে। ৮ মার্চ তা আরও বেড়ে দাঁড়ায় ২১৫ জনে। ১২ মার্চ তা বেড়ে হয় ২৭৭ জন। আর ১৪ মার্চ সেই সংখ্যা আরও বেড়ে দাঁড়ায় ২৮৩ জনে। আর সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সেই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১ হাজার ৭৩৩ জনে। ফলে করোনার এই দ্রুত বাড়ার হার দেখে আতঙ্ক বাড়ছে কলকাতাসহ রাজ্যজুড়ে।

তবে এর আগে করোনা নিয়ন্ত্রণের জন্য সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল, বিভিন্ন নার্সিংহোম ও রাজ্য সরকারের গড়া বিভিন্ন সেফ হোমে করোনার চিকিৎসা করা হলেও সম্প্রতি করোনার প্রকোপ কমে যাওয়ায় অধিকাংশ হাসপাতাল ও নার্সিংহোমে করোনার শয্যা কমিয়ে দেওয়া হয়। শুধু তা–ই নয়, রাজ্যে গড়া ২০০টি সেফ হোমের মধ্যে মাত্র একজন করোনা রোগী এখন ভর্তি রয়েছেন। বাকি সেফ হোমে রোগী না থাকায় কার্যত তা বন্ধ হয়ে গেছে। স্বাস্থ্য দপ্তর গতকাল জানিয়েছে ,এখন সেফ হোমগুলোতে আবার করোনা রোগী ভর্তির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া এখন এই রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় বাড়িতে করোনার চিকিৎসা নিচ্ছেন ৯ হাজার ৪৫৩ জন রোগী।

এদিকে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণায় সূত্রে শুক্রবার জানানো হয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করেনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৮১ হাজার ৪৬৬ জন। মারা গেছেন ৪৬৯ জন। সব মিলিয়ে ভারতে এখন পর্যন্ত করোনায় মারা গেছেন ১ লাখ ৬৩ হাজার ৩৯৩ জন। আক্রান্ত হয়েছেন ১ কোটি ২৩ লাখ ৯১ হাজার ১২৯ জন। আর সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ১৫ লাখ ২৫ হাজার ৩৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৫০ হাজার ৩৫৬ জন। এখন গোটা দেশে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৬ লাখ ১৪ হাজার ৬৯৬ জন রোগী।

বিজ্ঞাপন
ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন