বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর জানিয়েছে, কলকাতায় গত সোমবার রোগী শনাক্ত হয়েছিল ২০৪ জন আর গতকাল তা বেড়ে হয়েছে ১ হাজার ৯৫৪ জন। রাজ্যে বর্তমানে করোনা রোগী রয়েছেন ১০ হাজার ৭১০ জন, এর মধ্যে কলকাতায় রয়েছেন ৪ হাজার ৯২৭ জন। গতকাল এই রাজ্যে করোনার টিকা নিয়েছেন ৫ লাখ ১৩ হাজার ২৩০ জন।

আর সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত এই রাজ্যে করোনার টিকা নিয়েছেন ১ কোটি ৪২ লাখ ৯৩ হাজার ১৮০ জন। আর গতকাল এই রাজ্যে করোনামুক্ত হয়ে বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিক থেকে বাড়ি ফেরেন ১ হাজার ৫১০ জন।

এদিকে কলকাতার নবনির্বাচিত মেয়র ফিরহাদ হাকিম দায়িত্ব নিয়ে গতকাল পৌর করপোরেশনের এক বৈঠকের পর বলেন, কোনো এলাকায় পাঁচ বা ছয়জন নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হলে ওই এলাকাকে বিশেষ জোন হিসেবে ঘোষণা করা হবে। ইতিমধ্যে কলকাতা পৌর এলাকার ১৭টি অঞ্চলকে বিশেষ জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

মেয়র ফিরহাদ হাকিম বলেন, এখনকার ৮০ শতাংশ রোগীর উপসর্গ নেই, ৩ শতাংশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। করোনার প্রকোপ কমে আসায় পৌর এলাকায় আগে গড়া বিভিন্ন সেফ হোম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আগামী সোমবার থেকে এসব সেফ হোম পুনরায় খোলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর গতকাল রাতে জানিয়েছে, এ রাজ্যে সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় ৭ জন মারা গেলেও রাজ্যের ২৩টি জেলার মধ্যে ২০টি ছিল মৃত্যুশূন্য। উত্তর ২৪ পরগনায় ২ জন, দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ১ জন ও কলকাতা জেলায় ৪ জন মারা যান।

পশ্চিমবঙ্গজুড়ে হঠাৎ করোনায় মৃত্যু এবং সংক্রমণের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় রাজ্যে নতুন পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। করোনার তৃতীয় ঢেউ মোকাবিলায় বেসরকারি হাসপাতালে করোনা ওয়ার্ড খোলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে গতকাল। রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন