default-image

গুঞ্জন ছাপিয়ে সত্যি কলকাতার ভোটার হলেন ভারতীয় জনতা পার্টিতে (বিজেপি) সদ্য যোগ দেওয়া বলিউড তারকা মিঠুন চক্রবর্তী। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, উত্তর কলকাতার কাশীপুর-বেলগাছিয়া বিধানসভা কেন্দ্রের ভোটার হয়েছেন তিনি।

মিঠুন যে ঠিকানায় ভোটার হয়েছেন, সেটি তাঁর বোনের বাড়ি (২২/১৮০ রাজামনীন্দ্র রোড, কলকাতা)। এদিকে কলকাতায় ভোটার হওয়ার খবর প্রকাশ হওয়ার পর আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে তাঁর লড়াই করার জল্পনা আরও জোরাল হয়েছে। অনেকেই বলতে শুরু করেছেন, শেষ পর্যন্ত তাঁকেই করা হতে পারে বিজেপির মুখ্যমন্ত্রীর মুখ।

৭ মার্চ কলকাতার ঐতিহাসিক ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিশাল জনসভায় উপস্থিত হয়ে মিঠুন চক্রবর্তী বিজেপিতে যোগ দেন। এরপর থেকে রাজ্যজুড়ে গুঞ্জন ওঠে তাঁকে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর মুখ করে নির্বাচনে লড়ার উদ্যোগ নিচ্ছে বিজেপি। যদিও বিজেপি নেতৃত্ব এ গুঞ্জনকে তেমন পাত্তা দেয়নি। তবে মিঠুন বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর ঘোষণা করেছিলেন, তিনি এই রাজ্যে জানপ্রাণ দিয়ে বিজেপির জন্য লড়বেন।

মিঠুনের আগে সাবেক ক্রিকেট তারকা সৌরভ গাঙ্গুলীকে নিয়েও জল্পনাকল্পনা তুঙ্গে উঠেছিল, রাজনীতিতে পা রাখছেন তিনি। স্ত্রী ডোনা গাঙ্গুলীও সৌরভের জন্মদিনে তাঁর রাজনীতিতে যোগদানের ইঙ্গিত দিয়ে বলেছিলেন, সৌরভ রাজনীতিতে যোগ দিলে থাকবেন শীর্ষে। এতে অনেকে ভেবে নেন, সৌরভকেই বিজেপি এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর পদে প্রার্থী করবেন। সেই ভাবনা থেকে সৌরভের সান্নিধ্যে চলে আসে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বও। ইতিমধ্যে সৌরভ অসুস্থ হয়ে পড়লে খোদ অমিত শাহ থেকে বিজেপির বহু নেতা তাঁর আরোগ্য কামনা করে বার্তাও পাঠান। পরে অবশ্য সৌরভ রাজনীতিতে আসবেন না ঘোষণা দেওয়ায় তাঁকে নিয়ে সেই জল্পনার অবসান ঘটেছে।

বিজ্ঞাপন

এবার মোদির ব্রিগেড থেকে মিঠুন বিজেপিতে যোগ দিলে তাঁকে নিয়েও শুরু হয় আলোচনা। ৭ মার্চ ব্রিগেডে বিজেপিতে মিঠুনের যোগদানের পর মঞ্চের পেছনে বসে প্রধানমন্ত্রী মোদি একান্তে ১৫ মিনিট কথা বলেন তাঁর সঙ্গে। এ কথা সংবাদমাধ্যমে প্রচার হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে রাজ্যের রাজনীতিতে সৃষ্টি হয় নতুন মেরুকরণ। মিঠুনকে নিয়ে জল্পনার পারদ চড়তে থাকে। সবার মুখে এক কথা, মিঠুন রাজনীতিতে আসছেন, নির্বাচনও করবেন। বিজেপিও তাঁকে মুখ্যমন্ত্রীর মুখ করে নির্বাচনে লড়বে।
মিঠুনকে নিয়ে আলোচনা চলার মধ্যে বিজেপির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ও পশ্চিমবঙ্গের দায়িত্বে থাকা দলটির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় শিলিগুড়িতে দলটির কার্যালয়ে এক বৈঠকে যোগ দিয়ে সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘মিঠুন বলেছেন লড়বেন না। তবু আমরা মিঠুনের সঙ্গে কথা বলব। তাঁকে প্রার্থী করার চেষ্টা করব।’ বিজয়বর্গীয়র কথায় এটা স্পষ্ট হয়, মিঠুন নির্বাচনে আসতে পারেন। ফলে মিঠুন এবার প্রার্থী হতে পারেন, তেমন ধারণাও জোরাল হয়ে ওঠে রাজনৈতিক মহলে। আর এসবের মধ্যেই আজ রোববার সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, মিঠুন কলকাতার ভোটার হয়েছেন। ফলে সেই জল্পনা আরও দৃঢ় হলো।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন