সপ্তাহ খানেক ধরে দর-কষাকষির পর জম্মু ও কাশ্মীরের সরকার গঠনে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সঙ্গে আঞ্চলিক দল পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টির (পিডিপি) মতৈক্য হয়েছে। কমন মিনিমাম প্রোগ্রাম বা ন্যূনতম অভিন্ন কর্মসূচি (সিএমপি) নিয়ে সমঝোতা হয়েছে বলে উভয় দল সূত্র জানিয়েছে। খবর এনডিটিভির।
বিজেপি ও পিডিপির অভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে জম্মু ও কাশ্মীরকে বিশেষ মর্যাদা দেওয়াসংক্রান্ত সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ এবং বিতর্কিত আর্মড ফোর্সেস স্পেশাল পাওয়ারস অ্যাক্ট বা আফসার বিষয়টি রয়েছে। এই দুই বিষয়ে দুটি দলের অবস্থান পরস্পরবিরোধী। ৩৭০ অনুচ্ছেদ আর আফসা নিয়েই আলোচনায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়েছিল বলে জানা গেছে।
পিডিপি সূত্র জানায়, আফসা প্রশ্নে তারা তাদের অবস্থানে কিছুটা ছাড় দিয়েছে। ওই আইনের বলে সেনাবাহিনী জম্মু-কাশ্মীরের মতো অস্থিতিশীল বা গোলযোগপূর্ণ স্থানে পরোয়ানা ছাড়াই গ্রেপ্তার করতে পারে। মুফতি মোহাম্মদ সাইদের নেতৃত্বাধীন পিডিপি এর আগে এই আইনটি প্রত্যাহার করার বিষয়ে একটি সময়সীমা দাবি করেছিল। এ ছাড়া আইনটি প্রয়োজনে আবার প্রয়োগের বিষয়ে তাদের মত ছিল। এবার বিজেপির সঙ্গে তাদের চুক্তি অনুসারে আইনটি বাতিল করতে কোনো সময়সীমা নির্ধারিত হয়নি। নিরাপত্তা পরিস্থিতির মূল্যায়ন করেই আইনটি প্রত্যাহারের বিষয়টি নির্ধারিত হবে বলে দুই দলের ভেতরে চুক্তি হয়েছে।
বিজেপি-পিডিপি চুক্তিতে অনুচ্ছেদ ৩৭০ নিয়ে বিশেষ কিছু নেই। জম্মু-কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসনের জন্য এই অনুচ্ছেদটি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। এর ফলে প্রতিরক্ষা বা জাতীয় নিরাপত্তা ছাড়া জম্মু-কাশ্মীর যুক্ত আছে এমন কোনো আইন করতে গেলে রাজ্যটির সরকারের অনুমোদন নিতে হয়। ভারতের একমাত্র মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ এই রাজ্যের স্বায়ত্তশাসনের বড় হাতিয়ার এই অনুচ্ছেদটি রক্ষা করতে পিডিপি মরিয়া।
৩৭০ অনুচ্ছেদ বিভাজনকে উসকে দেয়—এমন অভিযোগ করে আগে অনেকবারই বিজেপি এটি নিয়ে তাদের আপত্তির কথা বলেছে।
ভারতের প্রধানমন্ত্রী বিজেপির নেতা নরেন্দ্র মোদি কয়েক দিনের মধ্যেই মুফতি সাইদের সঙ্গে দেখা করবেন। তাঁদের সাক্ষাতের পরই দুই জোটের সরকার গঠনের বিষয়টি ফয়সালা হবে।
মাস দুয়েক আগে অনুষ্ঠিত জম্মু ও কাশ্মীরের বিধানসভা নির্বাচনে কোনো দলই সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় আসন পায়নি। বিধানসভার ৮৭টি আসনের মধ্যে পিডিপি ২৮টি আসন পেয়ে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়। বিজেপি পায় ২৫টি আসন।

বিজ্ঞাপন
ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন