কেজরিওয়ালকে বিজেপি 'সন্ত্রাসী' বলায়...

বিজ্ঞাপন
default-image

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী ও আম আদমি পার্টির (এএপি) প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে ‘সন্ত্রাসী’ বলায় বিজেপির ওপর খেপেছেন তাঁর স্ত্রী ও মেয়ে। বিজেপির এই বক্তব্যকে ‘রাজনীতির নতুন এক ইতরামো’ বলে মন্তব্য করেছেন তাঁরা। এনডিটিভি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

মুখ্যমন্ত্রীর মেয়ে হর্ষিতা (২৪) বলেন, ‘মানুষ বলে রাজনীতি নোংরা, তবে এটা যেন রাজনীতির নতুন এক ইতরামো। স্বাস্থ্য সুবিধা বিনা মূল্যে করা কি সন্ত্রাসবাদ? শিশুদের শিক্ষিত করা কি সন্ত্রাসবাদ? বিদ্যুৎ ও পানির নিশ্চয়তা দেওয়া কি সন্ত্রাসবাদ?’

গত ২৫ জানুয়ারি দিল্লিতে বিজেপির সাংসদ পরবেশ ভার্মা এক জনসভায় মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রথম ‘সন্ত্রাসী’ শব্দটি ব্যবহার করেন। ওই বক্তব্যে পরবেশ বলেন, ‘মুসলিম পুরুষেরা হিন্দু নারীদের তুলে নিয়ে যাচ্ছে—এমন ঘটনা শুনেছি...কেজরিওয়ালের মতো সন্ত্রাসীরা সর্বত্র লুকিয়ে রয়েছে বলে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। আমাদের কাশ্মীরে পাকিস্তান জঙ্গিদের বিরুদ্ধে লড়াই করা উচিত, নাকি কেজরিওয়ালের মতো সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াই করা উচিত, বুঝতে পারি না।’

দিল্লির শাহিনবাগ হলো ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধন আইন (সিএএ) ও জাতীয় নাগরিক নিবন্ধনবিরোধী আন্দোলনের কেন্দ্রস্থল। শাহিনবাগে বিক্ষোভকারীদের কেজরিওয়াল ও তাঁর দল মদদ দিচ্ছে—এমন অভিযোগ তুলছেন বিজেপি নেতারা। গত সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে বিজেপি নেতা প্রকাশ জাভড়েক আবারও কেজরিওয়ালকে ‘সন্ত্রাসী’ বলে আখ্যায়িত করেন। তিনি বলেন, ‘কেজরিওয়াল নির্দোষ সেজে জানতে চাইছেন যে তিনি সন্ত্রাসী কি না! আমি বলতে চাই, আপনি সন্ত্রাসবাদী। এর পক্ষে অনেক প্রমাণ রয়েছে। আপনি নিজেই বলেছিলেন আপনি নৈরাজ্যবাদী। সন্ত্রাসবাদী ও নৈরাজ্যবাদীর মধ্যে খুব একটা পার্থক্য নেই।’

বিজেপি নেতাদের এই অপবাদে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কেজরিওয়াল। গতকাল মঙ্গলবার এর জবাবে তিনি বলেন, এমন মন্তব্যে তিনি খুবই কষ্ট পেয়েছেন। তিনি দিল্লির জন্য কাজ করে গেছেন। তিনি বলেন, ‘আমি কী কারণে সন্ত্রাসী? কীভাবে তাঁরা আমাকে সন্ত্রাসী বলতে পারে? আমি আমার জীবন দিল্লির মানুষের সেবায় বিলিয়ে দিয়েছি। আমি তাঁদের পরিবারের বড় সন্তানের মতো দায়িত্ব পালন করছি। মানুষ যাতে বিনা মূল্যে পানি, বিদ্যুৎ, স্কুল ও হাসপাতালের সুবিধা পায়, তা নিশ্চিত করার চেষ্টা করছি। এখন দিল্লির জনগণই বলবে আমি কে?’

কেজরিওয়ালের পর ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তাঁর স্ত্রী ও মেয়ে। গতকাল মঙ্গলবার বার্তা সংস্থা এএনআইকে দেওয়া এক বক্তব্যে হর্ষিতা কেজরিওয়াল বলেন, ‘তারা অভিযোগ তুলুক, তারা ২০০ জন সংসদ সদস্য এবং ১১ জন মুখ্যমন্ত্রী আনুক। কেবল আমরা নই। ২ কোটি সাধারণ মানুষ আম আদমি পার্টির হয়ে প্রচার চালাচ্ছে। তারা ১১ ফেব্রুয়ারি দেখিয়ে দেবে। দেখবেন তারা সরকার দলের এই অভিযোগের ভিত্তিতে ভোট দেয় কি না।

একই কথা বলেন তাঁর স্ত্রী সুনীতা কেজরিওয়াল। তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি মানুষ তাঁদের (বিজেপি নেতাদের) একটি উপযুক্ত জবাব দেবে। আমাদের বিয়ে হয়েছে ২৫ বছর। তিনি সব সময় বলে এসেছেন জনগণের সেবাতেই তাঁর তৃপ্তি। যাঁরা এসব বলছেন, তাঁরা নিজেরাও জানেন মিথ্যা বলছেন। হয় তাঁরা এক রকম চাপের মধ্যে রয়েছেন অথবা তাঁদের স্বতন্ত্র পরিচয়ের অভাব রয়েছে।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন