সম্প্রতি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের একটি ভার্চ্যুয়াল সম্মেলন হয়। ওয়াশিংটনে আয়োজিত ‘২ প্লাস ২’ নামের ওই সম্মেলনে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্র সফর করছেন রাজনাথ সিং ও ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। সেখানে মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীও অংশ নিয়েছিলেন। সম্মেলন শেষে যুক্তরাষ্ট্রের হাওয়াই অঙ্গরাজ্যে ইন্দোপ্যাকমের সদর দপ্তরে বৈঠক করেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। সেখান থেকে তিনি সান ফ্রান্সিসকোতে যান।

সান ফ্রান্সিসকোতে ভারতীয় কনস্যুলেট তাঁর সম্মানে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ওই অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া অভিবাসী ভারতীয়দের উদ্দেশে দেওয়া বক্তব্যে রাজনাথ সিং বিতর্কিত চীন সীমান্তে মোতায়েন ভারতীয় সেনা ও মাতৃভূমি রক্ষায় সেনাদের আত্মত্যাগের প্রশংসার সময় চীনের উদ্দেশে এমন কড়া বার্তা দেন।

তিনি বলেন, ‘তাঁরা (ভারতীয় সেনা) কী করেছে এবং আমরা সরকারের তরফ থেকে কী সিদ্ধান্ত নিয়েছি, আমি সেটা প্রকাশ্যে বলতে পারি না। কিন্তু আমি অবশ্যই বলব, চীনের কাছে এ বার্তা পৌঁছে গেছে, ক্ষতিগ্রস্ত হলে ভারত কাউকে ছাড় দেবে না। হিন্দিতে তিনি বলেন, ভারতের কেউ ক্ষতি করলে ভারতও ছেড়ে দেবে না।’

২০২০ সালের ৫ মে লাদাখ সীমান্তে ভারত ও চীনা সেনাবাহিনী মুখোমুখি অবস্থানে দাঁড়ায়। এরপর প্যাংগং হ্রদ এলাকায় দুই দেশের সেনার মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এরপর ১৫ জুন গালওয়ান উপত্যকায় দুই পক্ষের সেনাদের সংঘর্ষে ২০ ভারতীয় সেনা প্রাণ হারান। চীনা সেনাও মারা যান। তবে চীন সেই হিসাব দেয়নি। এর পর থেকে সীমান্তে উত্তেজনা চলছে। উত্তেজনা নিরসনে দুই পক্ষে সামরিক নেতৃত্বের মধ্যে ১৫ দফা বৈঠক হলেও এখনো সীমান্ত নিয়ে দুই দেশের উত্তেজনা চলছে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন