ইডির নোটিশ উপেক্ষা প্রসঙ্গে রুজিরা বলেছিলেন, দিল্লির পরিবর্তে কলকাতার ইডি দপ্তরে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য কেন ডাকা হবে না? দিল্লির বদলে কলকাতার ইডি দপ্তরে হাজিরার দাবিতে রুজিরা তখন দিল্লি হাইকোর্টে মামলাও করেছিলেন। তবে হাইকোর্ট ইডির নির্দেশের ওপর কোনো হস্তক্ষেপ করেননি।

একই মামলায় নোটিশ পেয়েছিলেন রুজিরার স্বামী অভিষেকও। তিনি গত ২০ এপ্রিল দিল্লিতে ইডি কার্যালয়ে ৮ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হন।

কয়লা-কাণ্ডে দলের নেতা-কর্মীদের নাম জড়ানোয় ভীষণ ক্ষুব্ধ রাজ্যের তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এর আগে তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, এভাবে রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য এজেন্সি লেলিয়ে অভিষেক, রুজিরাসহ দলের অন্য নেতাদের দমন করা যাবে না। যোগ্য জবাব পাবেন তাঁরা। মমতা আরও বলেছিলেন, ‘মিথ্যা অভিযোগে’ কখনো অভিষেক, কখনো তাঁর স্ত্রীকে দিল্লিতে তলব করা হচ্ছে। এমনকি তাঁর বন্ধুদেরও ডাকা হচ্ছে। এটা মেনে নেওয়া যায় না।

পশ্চিমবঙ্গের চাঞ্চল্যকর এই কয়লা-কাণ্ডে অভিষেক, রুজিরা ছাড়াও তৃণমূলের বেশ কয়েকজন নেতার জড়িত থাকার অভিযোগ উঠেছে। তাঁদের বিরুদ্ধে ১ হাজার ৩২৩ কোটি রুপি বিদেশে পাচারের অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগ আছে, এসব অর্থ লন্ডন ও ব্যাংককের ব্যাংকে জমা করা হয়েছে। আর এই চক্রের পেছনে রয়েছে রাজ্যের একজন নামী কয়লা মাফিয়া। তিনি আবার যুব তৃণমূল কংগ্রেসের একজন শীর্ষ নেতাও। এখন পালিয়ে দেশছাড়া হয়ে বিদেশে আত্মগোপন করে আছেন তিনি।

পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন কয়লাখনি থেকে অবৈধভাবে কয়লা উত্তোলনের অভিযোগ দীর্ঘদিনের। অভিযোগ আছে, রাজ্যটির ক্ষমতাসীন দলের অনেকে অবৈধভাবে তোলা কয়লা বিক্রির সঙ্গে জড়িত। তাঁরা কয়লা বিক্রি বাবদ পাওয়া অর্থ বিদেশে পাচার করেছেন। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করে ভারতের কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা সিবিআই। এর পর থেকেই ঘটনাটি ‘কয়লা কেলেঙ্কারি’ নামে পরিচিতি পায়।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন