বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আশিসের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ, তাতে তাঁকে তাৎক্ষণিকভাবে গ্রেপ্তার করার কথা ছিল। কিন্তু তাঁকে গ্রেপ্তারে গড়িমসি করা হচ্ছিল। তাই এ নিয়ে প্রশ্ন ওঠে, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয়ের কারণে তাঁর ছেলে আশিসকে বিশেষ ছাড় দেওয়া হচ্ছে। এমনকি গ্রেপ্তারের এক দিন আগেও তিনি পুলিশি সমনে সাড়া দেননি।

উত্তর প্রদেশ পুলিশের শীর্ষ সূত্রের তথ্যমতে, রোববারের গাড়িচাপার ঘটনার সময় আশিস ঠিক কোথায় ছিলেন, সে ব্যাপারে তিনি স্পষ্ট ব্যাখ্যা দিতে পারেননি।

লখিমপুর খেরির ঘটনা তদন্তে রাজ্য সরকারের কড়া সমালোচনা করেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। এ মামলা নিয়ে শুনানির দ্বিতীয় দিনে গত শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এন ভি রমনা প্রবল অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, শুধু বড় বড় কথাই শোনা গেছে। কাজের কাজ কিছুই হয়নি। স্বাভাবিক মামলায় পুলিশ যেভাবে কাজ করে, এ ক্ষেত্রেও যেন তেমনই হয়। নইলে দশেরার পর আদালত খুললে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ভারতের সুপ্রিম কোর্টের এমন তোপের পরই উত্তর প্রদেশ পুলিশ আশিসকে গ্রেপ্তার করে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন