গুজরাট দাঙ্গার সময় অন্যতম নৃশংস গুলবার্গ সোসাইটির গণহত্যায় কংগ্রেসের সংসদ সদস্য এহসান জাফরিসহ ৬৯ জন প্রাণ হারান। দাঙ্গার ঘটনায় রাজ্য প্রশাসনের বিরুদ্ধে বৃহত্তর ষড়যন্ত্রে শামিল থাকার অভিযোগ উঠেছিল। পরবর্তীকালে অবশ্য মোদিসহ ৬৪ জনকে অব্যাহতি দিয়েছিল সিট। ২০১৭ সালের অক্টোবরে বিশেষ তদন্তকারী সংস্থার চূড়ান্ত রিপোর্ট গ্রহণ করেছিলেন গুজরাট হাইকোর্ট। সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে ‘স্পেশাল লিভ পিটিশন’ দায়ের করেছিলেন এহসান জাফরির স্ত্রী জাকিয়া জাফরি।

এতে তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী মোদিকে অব্যাহতি দিয়েছিল বিশেষ তদন্ত দল (সিট)। সেই মামলা বন্ধের চূড়ান্ত রিপোর্ট গ্রহণ করেছিলেন ম্যাজিস্ট্রেট। আজ সেই সিদ্ধান্ত বহাল রেখেছেন সুপ্রিম কোর্টের তিন সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চ। তাঁরা বলেছেন, ‘২০২২ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি সিটের জমা দেওয়া চূড়ান্ত রিপোর্ট গ্রহণ করেছিলেন ম্যাজিস্ট্রেট। সেই সিদ্ধান্ত বহাল রাখছি আমরা ও মামলাকারীর (জাকিয়া) আরজি খারিজ করছি।’

সেই আবেদনের ভিত্তিতে শীর্ষ আদালতে শুনানি চলে। মামলাকারীর আইনজীবী কপিল সিব্বল সওয়াল করেছিলেন, সিটের তদন্তে ঘাটতি ছিল। একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বিবেচনা করা হয়নি। যদিও আজ রায় দেওয়ার সময় শীর্ষ আদালত জানায়, জাকিয়ার পিটিশনের ভিত্তি নেই এবং সেই আবেদন খারিজ হয়ে যাওয়ার যোগ্য।

তারপরই খারিজ করে দেওয়া হয় মামলা। সেই রায়ের পর গুজরাট সরকারের আইনজীবী তথা সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতা বলেন, ‘আপনাদের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ।’

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন