বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

‘শক্তি ২০২১’ শীর্ষক ওই সম্মেলনের আয়োজন করা হয় নারী পশুচিকিৎসকদের নিয়ে। সেখানে মুখ্যমন্ত্রী শিবাজি সিং জানান, সরকার গরুর জন্য অভয়ারণ্য ও আশ্রয়কেন্দ্র গড়ে তুলেছে। তবে এতেই শুধু কাজ হবে না, লোকজনের অংশগ্রহণেরও প্রয়োজন পড়বে।

শিবাজি সিং বলেন, ‘যদি আমরা চাই, তাহলে গরু, গোবর ও গোমূত্রের মাধ্যমে নিজেদের আর্থিক অবস্থা শক্তিশালী করতে পারব এবং দেশকে অর্থনৈতিকভাবে সক্ষম করে তুলতে পারব। কাঠের ওপর চাপ কমাতে সাংসদদের শ্মশানেও গোবর দিয়ে তৈরি জ্বালানি ব্যবহার করা হচ্ছে।’

default-image

শিবাজি সিং আরও জানান, গরু পালন কীভাবে ছোট খামারি ও গবাদিপশুর মালিকদের জন্য একটি লাভজনক ব্যবসা হয়ে উঠতে পারে, তা নিয়ে কাজ করতে হবে পশুচিকিৎসক ও বিশেষজ্ঞদের।

গতকালের সম্মেলনে বক্তব্য দেন মৎস্য, পশুপালন এবং ডেইরিসংক্রান্ত কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পুরুষোত্তম রুপালা। তিনি বলেন, গুজরাটের গ্রামগুলোতে বিপুলসংখ্যক নারী গরু পালনের সঙ্গে জড়িত। এর জেরে দুধের ব্যবসা সফলতার মুখ দেখেছে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন