বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, গত সপ্তাহের ওই উত্তেজনাকর পরিস্থিতিতে ২০ জন আহত হয়। সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে কোনো মন্তব্য করা হয়নি, কিন্তু এ ধরনের প্রতিবেদন করার সময় সাবধানতা অবলম্বন করতে পরামর্শ দেওয়া হয়। গতকাল রোববার দুই দেশের সেনা কমান্ডাররা বিরোধ মীমাংসার পথ বের করতে কয়েক ঘণ্টা বৈঠক করেন।

সরকারি সূত্রের বরাত দিয়ে এনডিটিভির খবরে বলা হয়, চীনা বাহিনীকে জোর করে ফেরত পাঠানোর সময় ভারতীয় চার সেনা আহত হয়। সে সময় চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির কয়েকজন সদস্য আহত হন।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়, চীনের রাষ্ট্র পরিচালিত গ্লোবাল টাইমসের প্রধান সম্পাদক ভারতের গণমাধ্যমে আসা খবরকে ভুল বলে প্রত্যাখান করেছেন। হু সিজিন বলেন, এটি একটি ভুয়া খবর। আমি যতদূর জানতে পেরেছি, চীনা অংশে এ ধরনের সংঘর্ষের কোনো রেকর্ড নেই। চীন-ভারত সীমান্তে ছোটখাটো সংঘর্ষ প্রায়ই হয়। কিন্তু যে সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন আহত হয়, তার অবশ্যই রেকর্ড থাকে।

গত জুন মাসে পূর্ব লাদাখে ভারত-চীন প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা (এলএসি) বরাবর গালওয়ান অঞ্চলে দুই দেশের সেনাদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বাধে। তাতে ভারতের ২০ জন জওয়ান নিহত হন। চীনের তরফেও বহু হতাহত হলেও তারা তা স্বীকার করেনি। সেই থেকে সীমান্তে উত্তেজনা চলছে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন